সড়ক দুর্ঘটনায় শিক্ষার্থীর মৃতু্য

সঠিক পদক্ষেপ নিন
সড়ক দুর্ঘটনায় শিক্ষার্থীর মৃতু্য

দেশে যাতায়াতজনিত দুর্ঘটনা মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। প্রতিদিনই দেশের কোনো না কোনো অঞ্চলে দুর্ঘটনায় মানুষ মারা যাচ্ছে। বিশেষ করে সড়ক দুর্ঘটনায় মৃতু্যর বিভীষিকা থেকে কিছুতেই যেন রক্ষা নেই এ দেশের মানুষের। কিন্তু ভয়াবহ এ দুর্ঘটনাগুলো কেন হচ্ছে কারা এর জন্য দায়ী তা শনাক্ত করে দায়ীদের শাস্তি নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের মনোযোগ ও তৎপরতা চোখে পড়ছে না। দুর্ঘটনা প্রতিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ না করার কারণেই এর পুনরাবৃত্তি হচ্ছে। রাজধানীর গুলিস্তানের গোলচত্বরে হল মার্কেটের সামনে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ময়লার গাড়ির ধাক্কায় নটর ডেম কলেজের এক শিক্ষার্থীর মৃতু্য হয়েছে। ওই শিক্ষার্থীর নাম নাঈম হাসান (১৭)। সে কলেজের মানবিক শাখার ২য় বর্ষের শিক্ষার্থী। দুর্ঘটনার পর ঘাতক গাড়ি ও চালক মো. রাসেলকে (২৭) আটক করেছে পল্টন থানা পুলিশ। রাস্তা পার হওয়ার সময় ডিএসসিসির ময়লার গাড়ির ধাক্কায় গুরুতর আহত হয় ওই শিক্ষার্থী। পাশে থাকা পুলিশের এক সদস্য ঘাতক গাড়ির চালক ও গাড়িটি জব্দ করে। তাকে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে এলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এই ঘটনা অত্যন্ত মর্মান্তিক। ময়লাবাহী গাড়ির ধাক্কায় নটর ডেম শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করেছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন। কমিটিকে ঘটনা তদন্ত করে আগামী সাত দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। অভিযোগ রয়েছে, গাড়ি চালাচ্ছিল সুইপার।

\হযথাযথ পদক্ষেপ না নেওয়ার কারণেই এ দেশের মানুষ আপনজন হারিয়ে চোখের পানি ঝরাচ্ছে আর নিঃস্ব হচ্ছে অসংখ্য পরিবার। অথচ কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে কার্যকর উদ্যোগ নিলে দুর্ঘটনা রোধ করা সম্ভব। সড়ক দুর্ঘটনার জন্য দায়ী মূলত অবৈধ চালক ও চালকের অসতর্কতা, অসুস্থ প্রতিযোগিতা ও খামখেয়ালিপনা, ফিটনেসবিহীন যানবাহন ও সড়ক-মহাসড়কের ভঙ্গুর অবস্থা। সড়ক দুর্ঘটনা রোধে ফিটনেসবিহীন গাড়ির বিরুদ্ধে সরকার অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে কিন্তু তেমন ইতিবাচক ফল পাওয়া যাচ্ছে না।

এক প্রতিবেদনে প্রকাশ, গত ছয় বছরে দেশে সড়ক দুর্ঘটনায় ৪৩ হাজার ৮৫৬ জনের প্রাণহানির তথ্য তুলে ধরেছে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি। সারাদেশে প্রতিদিন গড়ে ৬৪ জন মানুষ সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারাচ্ছেন, আর আহত হচ্ছেন ১৫০ জনের বেশি। সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদের ভিত্তিতে দেশে দুর্ঘটনার তথ্য নিয়মিতভাবে সংরক্ষণ করে যাত্রী কল্যাণ সমিতির সড়ক দুর্ঘটনা মনিটরিং সেল। তাদের হিসাবে গত ছয় বছরে ৩১ হাজার ৭৯৩টি সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে।

এখানে বিশেষভাবে উলেস্নখ্য, ২০১৮ সালে রাজধানীর শহীদ রমিজউদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দুই শিক্ষার্থীর মৃতু্যর পর নিরাপদ সড়কের দাবিতে সারাদেশে নজিরবিহীন আন্দোলনের সূচনা করে শিক্ষার্থীরা। তাতে সরকার নতুন করে বিভিন্ন উদ্যোগ নিতে বাধ্য হয়। কিন্তু তারপরও পরের বছর দুর্ঘটনায় মৃতু্য বেড়েছে।

আইনের সঠিক প্রয়োগ না থাকায় দেশে দুর্ঘটনাজনিত মৃতু্যর সংখ্যা বাড়ছে। এ সব রুখতে হবে? যে কোনো মৃতু্যই দুঃখজনক। সে মৃতু্য যদি অকাল ও আকস্মিক হয়, তবে তা মেনে নেওয়া আরও কঠিন। প্রতিনিয়ত সড়ক দুর্ঘটনার কবলে পড়ে একের পর এক অকালমৃতুু্য আমাদের শুধু প্রত্যক্ষই করতে হচ্ছে না, এ দুর্ঘটনাকে কেন্দ্র করে এক বিভীষিকাময় ও অরাজক পরিস্থিতিও মোকাবিলা করতে হচ্ছে- যা আমাদের কারও কাছেই প্রত্যাশিত নয়। আমরা সড়ক দুর্ঘটনা রোধে পরিবহণ মালিক ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাছ থেকে সমন্বিত আন্তরিক, সচেতন, দৃঢ় ও দায়িত্বশীল ভূমিকা আশা করি।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
আইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে