শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১৭ ফাল্গুন ১৪৩০
walton
পাঠক মত

আধুনিকতার ছোঁয়ায় হারিয়ে যাচ্ছে নিজস্ব গতিপথ

ইয়াছিন মোহাম্মদ ঢাকা
  ৩০ নভেম্বর ২০২৩, ০০:০০

আধুনিকতার ছোঁয়ায় এগিয়ে যাচ্ছে পৃথিবী। দিন থেকে দিন পরিবর্তন হচ্ছে সভ্যতা। পৃথিবী এবং মানুষের পরিবর্তনের গতি সমানতালে তাল মিলিয়ে চলছে। উন্নত হচ্ছে প্রযুক্তি। উন্নত হচ্ছে সমাজসভ্যতা। কয়েক দশক আগে মানুষ যা চিন্তা করতে পারত না বর্তমানে তা মানুষের হাতের নাগালে। পৃথিবী এখন হাতের মুঠোয়। সামাজিক যোগাযোগের জন্য রয়েছে ফেসবুক, টুইটার, ভাইবার, ইউটিউব, ইমো, ইনস্টাগ্রাম, স্ন্যাপচ্যাট, হোয়াটসঅ্যাপ ইত্যাদি মাধ্যম। বিনোদনের জন্য রয়েছে বিভিন্ন সফটওয়্যার, নানা রকম গেইমিং অ্যাপ। এ ছাড়া রয়েছে কম্পিউটার প্রোগ্রামিং সিস্টেম। শিক্ষামূলক বিভিন্ন ওয়েবসাইট থেকে শুরু করে অনলাইনভিত্তিক ই-পেপার, ই-বুক, ই-লার্নিং, ই-মার্কেট। এ ছাড়া বিভিন্ন ধরনের ই-সেবা রয়েছে যা আমাদের অগ্রগতির চূড়ায় পৌঁছে দিচ্ছে। জীবনকে করছে সহজ ও সময়সাপেক্ষ। এমনকি বর্তমানে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (এআই) ব্যবহার করে মানুষের কাজ করছে রোবট। কয়েকমাস আগে ভারতের উড়িষ্যায় লিসা নামে নিউজ রিপোর্টার নিউজ টেলিকাস্ট করছিল যে ছিল রোবট। মানুষ প্রতিনিয়ত প্রযুক্তির উপর নির্ভরশীল। আরও সহজভাবে বলা যায় প্রযুক্তি অক্সিজেনের মতো মানুষের শিরা-উপশিরায় মিশে আছে। বিন্দুমাত্র রক্ত চলাচলের ত্রম্নটিতে মৃতু্য নিশ্চিত। জীবন-প্রযুক্তি-আধুনিকতা এই তিনটি বিষয় একই সূত্রে গাঁথা। জীবনের পরিবর্তনে প্রযুক্তির উন্নতিতে আধুনিকতা চলমান। আধুনিকতার জাদু দিয়ে গোটা বিশ্বের সঙ্গে খেলা করছি প্রতিনিয়ত। ঘরে বসেই যোগাযোগ করছি কানাডা, আমেরিকা, জাপানসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে। এখন আর ব্যবসা- বাণিজ্যের জন্য অফিসে যেতে হয় না, শিক্ষা অর্জনের জন্য যেতে হয় না শিক্ষা-অঙ্গনে, খেলাধুলার জন্য ছেলেমেয়েরা পড়ন্ত বিকেলে মাঠে যায় না, রান্না শেখার জন্য মায়ের কাছে রায়না ধরতে হয় না, চিঠি পৌঁছানোর জন্য রানারের প্রয়োজন হয় না। ঘরে বসেই সব শেখা যায় ইন্টারনেট নামক জাদুর বাক্স ব্যবহার করে। উন্নত প্রযুক্তি আমাদের যা দিচ্ছে তার চেয়ে বেশি কেড়ে নিচ্ছে। আমি এটা বলছি না যে আমাদের উন্নত প্রযুক্তি বা আধুনিকতার দরকার নেই। অবশ্যই দরকার আছে। দরকার আছে প্রযুক্তির সঠিক ব্যবহারের। আধুনিকতা মানে কী গেম খেলতে খেলতে মৃতু্যবরণ করা? আধুনিকতা মানে কী মেসেঞ্জারে অবৈধ সম্পর্ক স্থাপন করে স্ত্রীকে তালাক দেওয়া? পিতা-মাতাকে বৃদ্ধাশ্রমে পাঠানো? স্ব-ধর্মীয় অনুশাসন ভুলে গিয়ে অপ-সংস্কৃতি চর্চা করা? কিছুদিন আগে ট্রেনে ঢাকা যাওয়ার পথে আমার পাশের সিটে বসে একজন অফিসারের ছেলে ফোনে ফুটবল গেম খেলছিল। এমন অবস্থায় ফোন কল এলো। সে গেমে এতটাই আসক্ত ছিল যে তার বাবাকে ফোন কল রিসিভ করার জন্য দিল না। কিন্তু কিছুদিন আগেও আমাদের সোনার ছেলেরা এ রকম ছিল না। বিকাল হলেই মাঠে ফুটবল, ক্রিকেট, ভলিবল, বাস্কেটবল, কাবাডি ইত্যাদির চর্চা হতো। বর্তমানে মাঠে গিয়ে খেলাধুলা করে এমন খেলোয়াড়দের সংখ্যা ব্যষ্টিক হয়ে দাঁড়িয়েছে। শারীরিক-মানসিক ফিটনেস, কর্মদক্ষতা ও সুস্বাস্থ্যের জন্য খেলাধুলার বিকল্প নেই। শিক্ষাঙ্গনে শিক্ষকদের বচন ছাত্রদের কাছে এখন আর শ্রম্নতিমধুর লাগে না। কোনো একটা নির্দিষ্ট বিষয় সম্পর্কে অজানা থাকলে জানার জন্য এখন আর শিক্ষককে প্রশ্ন করে না। কারণ বাসায় গিয়ে অনলাইন বা গুগল থেকে শিখে নেবে। এভাবে যদি শিক্ষা অর্জন করা যেত তাহলে সরকার প্রতি বছর কোটি কোটি টাকা শিক্ষার পিছনে খরচ করত না। আমরা দিন দিন এই অদৃশ্য হাতের ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়ছি। যেটা আমাদের নতুন কিছু করার, নতুন কিছু ভাবার, নতুন কিছু উদ্বোধন করা থেকে দমিয়ে রাখছে। নিজে থেকে নতুন কিছু আবিষ্কারের সজীব সত্তাকে বিনষ্ট করে দিচ্ছে এই অদৃশ্য হাত। কয়েক দশক আগেও প্রযুক্তি ব্যবহার ছিল না জন্ম নিয়েছে মুকুন্দরাম, ভারতচন্দ্র রায়গুণাকর, বিদ্যাপতি, চন্ডীদাস, আলাওল, ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর, রবীন্দ্রনাথের মতো বিখ্যাত ব্যক্তি। বর্তমানে আধুনিকতার ছোঁয়ায় দিনকে দিন চোর, ডাকাত, ধর্ষক, ছিনতাইকারী, হ্যাকার, চাঁদাবাজের সংখ্যা বেড়ে গেছে। এমনকি মুঠোফোনভিত্তিক সেবা নগদ, বিকাশ থেকে ভোক্তারা হয়রানির স্বীকার হচ্ছেন। মানুষ ভুল করবে এবং ভুল থেকে শিক্ষা গ্রহণ করে জীবনের প্রতিটি স্তরে কাজে লাগাবে। কখন মানুষ ভুল থেকে শিক্ষা অর্জন করবে? যখন মানুষ ওই অদৃশ্য হাত নামক জাদুর বাক্স থেকে বেরিয়ে আসবে এবং পরনির্ভরশীলতা বোধ পরিহার করে আত্মসত্তা জাগিয়ে তুলবে। কারণ কোনো একটা জিনিস আগে থেকে তৈরি করা আর নিজে তৈরি কারার মধ্যে আকাশ-জমিন পার্থক্য রয়েছে। তাই আমাদের উচিত প্রযুক্তির ইতিবাচক দিকগুলো গ্রহণ করে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তুলতে সাহায্য করা।

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে