রোববার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

ষষ্ঠ শ্রেণির বাংলা দ্বিতীয় পত্র

আতাউর রহমান সায়েম, সহকারী শিক্ষক, মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ য় া
  ০৬ অক্টোবর ২০২২, ০০:০০
ভাষা ও বাংলা ভাষা ৭৩. আমাদের দেশের দ্বিতীয় ভাষা মূলত কোনটি? ক. বাংলা খ. ইংরেজি গ. হিন্দি ঘ. আঞ্চলিক উত্তর : খ. ইংরেজি ৭৪. আমরা আরবি, সংস্কৃত বা পালি ভাষা মূলত শিখি কেন? ক. সামাজিক কারণে খ. নৈতিক কারণে গ. ধর্মীয় কারণে ঘ. রাজনৈতিক কারণে উত্তর : গ. ধর্মীয় কারণে ৭৫. মুখের ভাষার ক্ষেত্রে কোন কথাটি প্রযোজ্য? ক. আড়ষ্ট খ. কৃত্রিম গ. স্বতঃস্ফূর্ত ঘ. জটিল উত্তর : গ. স্বতঃস্ফূর্ত ৭৬. সাধু ভাষা সৃষ্টির উদ্ভাবকরা কোন শ্রেণির মানুষের ভাষারীতিতে শ্রদ্ধাশীল ছিলেন না? ক. হিন্দি ভাষী মানুষের খ. লোকজ মানুষের গ. শহুরে মানুষের ঘ. বিদেশি মানুষের উত্তর : খ. লোকজ মানুষের ৭৭. সাধু ভাষা কোন ভাষার আদলে তৈরি হয়েছে? ক. হিন্দি খ. সংস্কৃত গ. ইংরেজি ঘ. সংস্কৃত উত্তর : খ. সংস্কৃত ৭৮. সাধু ভাষাকে প্রাঞ্জল করতে প্রথমে কে কাজ করেন? ক. বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় খ. রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর গ. ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর ঘ. কাজী নজরুল ইসলাম উত্তর : গ. ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর ৭৯. সাধু ভাষার জনক বলা হয় কাকে? ক. ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরকে খ. বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়কে গ. শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়কে ঘ. রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে উত্তর : ক. ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরকে ৮০. সাধুরীতির জন্ম হয়েছে কোন খ্রিষ্টাব্দের দিকে? ক. ১৭০০ খ্রিষ্টাব্দ খ. ১৮০০ খ্রিষ্টাব্দ গ. ১৯০০ খ্রিষ্টাব্দ ঘ. ২০০০ খ্রিষ্টাব্দ উত্তর : খ. ১৮০০ খ্রিষ্টাব্দ ৮১. চলিত ভাষার সৃষ্টি হয় কত সালে? ক. ১৯১৩ সালে খ. ১৯১৪ সালে গ. ১৯১৮ সালে ঘ. ১৯১৯ সালে উত্তর : খ. ১৯১৪ সালে ৮২. বাংলা প্রবাদ-প্রবচন খুব সহজেই ব্যবহার করা যায় কোন ভাষায়? ক. সংস্কৃত খ. সাধু গ. চলিত ঘ. মিশ্র উত্তর : গ. চলিত ধ্বনিতত্ত্ব ১. ধ্বনির উচ্চারণে মানব শরীরের যে সব প্রত্যঙ্গ জড়িত, সেগুলোকে একত্রে কী বলে? ক. শ্বাসনালি খ. স্বরযন্ত্র গ. গলনালি ঘ. বাগযন্ত্র উত্তর : ঘ. বাগযন্ত্র ২. আমাদের শরীরের উপরের প্রত্যঙ্গগুলোর প্রধান কাজ- র. শ্বাসকার্য পরিচালনা করা রর. খাদ্য গ্রহণ করা ররর. কথা বলা নিচের কোনটি ঠিক? ক. র ও রর খ. র ও ররর গ. রর ও ররর ঘ. র, রর ও ররর উত্তর : ক. র ও রর ৩. বাগযন্ত্রের সাহায্যে আমরা কী উৎপাদন করি? ক. ধ্বনি খ. বর্ণ গ. শব্দ ঘ. বাক্য উত্তর : ক. ধ্বনি ৪. যে সব প্রত্যঙ্গ দিয়ে বাগযন্ত্র তৈরি- র. ফুসফুস, শ্বাসনালি, মধ্যচ্ছদা, চিবুক রর. স্বরতন্ত্র, জিভ, ঠোঁট, নিচের চোয়াল ররর. দাঁত, তালু, গলনালি, মধ্যচ্ছদা, চিবুক নিচের কোনটি ঠিক? ক. র ও রর খ. র ও ররর গ. রর ও ররর ঘ. র, রর ও ররর উত্তর : ঘ. র, রর ও ররর ৫. যে বাগধ্বনি উচ্চারণের সময় ফুসফুসে আসা বাতাস মুখের মধ্যে কোনোভাবে বাধাপ্রাপ্ত হয় না, সেগুলোকে কী বলে? ক. স্বরধ্বনি খ. স্বরবর্ণ গ. ব্যঞ্জনধ্বনি ঘ. ব্যঞ্জনবর্ণ উত্তর : ক. স্বরধ্বনি ৬. কোন স্বরধ্বনি উচ্চারণের সময় বাতাস বাধাহীনভাবে একই সঙ্গে মুখ ও নাক দিয়ে বের হয়? ক. অ খ. আ গ. ই ঘ. উ উত্তর : গ. ই ৭. স্বরধ্বনির উচ্চারণের বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় কী? ক. দুটি খ. তিনটি গ. চারটি ঘ. পাঁচটি উত্তর : খ. তিনটি ৮. স্বরধ্বনির উচ্চারণে বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়- র. জিভের উচ্চতা রর. জিভের অবস্থান ররর. ঠোঁটের আকৃতি নিচের কোনটি ঠিক? ক. র ও রর খ. র ও ররর গ. রর ও ররর ঘ. র, রর ও ররর উত্তর : ঘ. র, রর ও ররর ৯. কোমল তালুর অবস্থা অনুযায়ী স্বরধ্বনিগুলোকে যে জাতীয় স্বরধ্বনি হিসেবে উচ্চারণ করতে হয়- র. মৌখিক স্বরধ্বনি রর. আনুনাসিক স্বরধ্বনি ররর. সম্মুখ স্বরধ্বনি নিচের কোনটি ঠিক? ক. র ও রর খ. র ও ররর গ. রর ও ররর ঘ. র, রর ও ররর উত্তর : ক. র ও রর ১০. জিভের সামনের অংশের সাহায্যে উচ্চারিত স্বরধ্বনিগুলোকে কী বলে? ক. সম্মুখ স্বরধ্বনি খ. মধ্য-স্বরধ্বনি গ. পশ্চাৎ স্বরধ্বনি ঘ. নিম্ন-স্বরধ্বনি উত্তর : ক. সম্মুখ স্বরধ্বনি ১১. জিভ স্বাভাবিক অবস্থায় থেকে অর্থাৎ সামনে কিংবা পেছনে না সরে যে সব স্বরধ্বনি উচ্চারিত হয়, সেগুলোকে কী বলে? ক. সম্মুখ স্বরধ্বনি খ. মধ্য-স্বরধ্বনি গ. পশ্চাৎ স্বরধ্বনি ঘ. নিম্ন-স্বরধ্বনি উত্তর : খ. মধ্য-স্বরধ্বনি হ পরবর্তী অংশ আগামী সংখ্যায়
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে