বিএনপি তার নেতাদের অশোভন কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে কখনো ব্যবস্থা নেয় না : তথ্যমন্ত্রী

বিএনপি তার নেতাদের অশোভন কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে কখনো ব্যবস্থা নেয় না : তথ্যমন্ত্রী

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ডক্টর হাছান মাহমুদ বলেন, 'বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে ডা. মুরাদ হাসানের বিতর্কিত মন্তব্য সরকার ও দলকে বিব্রত করেছে। তাই প্রধানমন্ত্রী নির্দেশে তাকে পদত্যাগ করতে হয়েছে। এমনকি জেলা আওয়ামী লীগের পদ থেকেও তাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। কিন্তু বিএনপির নেতাদের অশোভন কথা ও কুরুচিপূর্ণ কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে কখনো দলটিকে কোনো ব্যবস্থা নিতে দেখা যায় না।'

বুধবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে বাংলাদেশ সরকারি কর্মচারী ফেডারেশন আয়োজিত 'তারুণ্যের তর্জনী' শীর্ষক এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্যমন্ত্রী ডক্টর হাছান মাহমুদ এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, সরকার ও দলের ভাবমূতি নষ্ট করে এমন যেকোনো কর্মকান্ড, সে যেই হোক; প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করেন। ডা. মুরাদ হাসানকে মন্ত্রী ও দলীয় পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া তারই একটা উদাহরণ। কিন্তু বিভিন্ন সময়ে বিএনপি নেতাদের এমন অশোভন কুরুচিপূর্ণ বক্তব্যে বিরুদ্ধে দলটিকে কোনো ব্যবস্থা নিতে দেখা যায়নি।

বিএনপি নেতা ইসরাক, মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, যুক্তরাজ্য বিএনপির সভাপতি এম.এ মালেকসহ বিভিন্ন নেতাদের কুরুচিপূর্র্ণ বক্তব্যে ও কর্মকান্ডের উলেস্নখ করে হাছান মাহমুদ বলেন, 'তাদের এসব বক্তব্য এখনো সামাজিক মাধ্যমগুলোতে রয়েছে, কই বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুলসহ দেশের নারী নেতৃত্বকে কোনো সময় তাদের রিুদ্ধে বিবৃতি দিতে দেখা যায় না। তাই আমি বলব, যদি প্রতিবাদ করেন তাহলে এদের বিরুদ্ধেও করুন'।

এ সময় সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর নেওয়া বিভিন্ন উদ্যোগ তুলে ধরে মন্ত্রী বলেন, যেকোনো বেসরকারি চাকরির চেয়ে বর্তমানে সরকারি চাকরি বেশি আকর্ষণীয়। মাত্র ৫-৭ বছরের মধ্যে প্রায় দ্বিগুণ করা হয়েছে বেতন-ভাতাসহ বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা। যেন রাষ্ট্রের সেবক হিসেবে জনগণকে তার কাঙ্ক্ষিত সেবা প্রদান নিশ্চিত করা যায়।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য শাহজাহান খান স্বাধীনতা যুদ্ধ ও পরবর্তীতে দেশ পরিচালনাসহ বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের অবদান স্মরণ করেন।

এ সময় আরও বক্তব্য রাখেন সংসদ সদস্য আনোয়ার হোসেন খান, সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক আকতার হোসেন। সভাপতিত্ব করেন হেদায়েত হোসেন। এ সময় স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে সরকারি কর্মচারী কল্যাণ পরিষদ আয়োজিত 'তারুণ্যের তর্জনী' শীর্ষক সারাদেশ থেকে বিশ্ববিদ্যালয় ও স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের সৃজনশীল প্রতিযোগিতায় ১০০ জন বিজয়ীর মধ্যে পুরস্কার তুলে দেন অতিথিরা।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

সকল ফিচার

ক্যাম্পাস
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
আইন ও বিচার
হাট্টি মা টিম টিম
কৃষি ও সম্ভাবনা
রঙ বেরঙ

Copyright JaiJaiDin ©2022

Design and developed by Orangebd


উপরে