মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

ধুনটের 'বউ মেলায়' উপচেপড়া ভিড়

ম ইমরান হোসেন ইমন, ধুনট (বগুড়া)
  ০৬ অক্টোবর ২০২২, ০০:০০
সকল অপশক্তি বিনাশ করে কল্যাণ প্রতিষ্ঠায় দেবী দুর্গা মর্তলোক ছেড়ে চলে যাওয়ার মধ্য দিয়ে বগুড়ার ধুনটে শেষ হয়েছে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গা পূজা। প্রতিমা বিসর্জন উপলক্ষে বুধবার ধুনট পৌর এলাকার সরকারপাড়া গ্রামের ইছামতি নদীর তীরে এবারও বসেছিল শতাব্দীর প্রাচীন 'বউ মেলা'। ৭০তম এই বউ মেলায় প্রতি বছরের মতো এবারও ছিল ক্রেতা ও দর্শনার্থীদের উপচেপড়া ভিড়। এই মেলায় শুধুমাত্র মহিলারাই প্রবেশ করতে পারেন। এখানে পুরুষদের প্রবেশ সম্পূর্ণ নিষেধ। মেলার প্রধান ফটকে মহিলা স্বেচ্ছাসেবীরা নিয়োজিত থাকেন। এ কারণে মহিলারা স্বাচ্ছন্দ্যে কেনাকাটা করতে পারেন। তাই যুগ যুগ ধরে এই মেলাটির নামকরণ হয়েছে 'বউ মেলা' নামে। মেলা ঘিরে প্রতি বছর হিন্দু-মুসলিমসহ বিভিন্ন ধর্মের হাজার হাজার মানুষের সমাগম ঘটে। প্রতিমা বিসর্জনকে ঘিরে বুধবার সকাল থেকে দোকানিরা পসরা সাজিয়ে বসে মেলায়। দুপুর গড়াতেই মেলায় সমাগম ঘটতে থাকে হিন্দু-মুসলিমসহ বিভিন্ন ধর্মের হাজার হাজার মানুষের। তবে যুগ যুগ ধরে ধুনট পৌর এলাকার সরকারপাড়া ইছামতি নদীতে ৫/৭টি মন্দিরের প্রতীমা একসঙ্গে বিসর্জন দেওয়া হলেও কেন্দ্রীয় নির্দেশনায় গত দুই বছর ধরে শুধুমাত্র সরকারপাড়া মন্দিরের প্রতিমাই বিসর্জন দেওয়া হয়। ধুনট সদর থেকে পূর্ব দিকে মেলার দূরত্ব মাত্র এক কিলোমিটার। মেলায় প্রবেশ করতেই দেখা মেলে, গ্রামীণ সড়ক জুড়ে মানুষের কোলাহল। শিশুর হাতে মেলার বাঁশি। হাওয়ায় ভাসা রঙিন বেলুন। নব সাঁজে বঁধুর ঘোমটার ফাঁক দিয়ে উঁকি মারছে সিথির সিঁদুর। ইছামতি নদীর তীর ঘেঁষা গ্রামটি যেন হঠাৎ করেই জেগে ওঠে কোনো এক অজানা পরশে। তবে মেলায় হিন্দু ধর্মাবলম্বী লোকজন আসে ভক্তি আর মানত নিয়ে। আর অন্য ধর্মের লোকজন আসে আনন্দ-উৎসব করতে। দেবী দুর্গা মর্ত্যলোক ছেড়ে চলে যাওয়ার দৃশ্য দেখাই এই মেলার প্রধান আকর্ষণ। বুধবার বিজয়া দশমীতে সূর্যাস্তের সঙ্গে সঙ্গে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে ঐতিহ্যবাহী ৭০তম এই 'বউ মেলার' সমাপ্তি ঘটে। \হমেলায় আগত ক্রেতা আরতি রানী জানান, শেরপুর উপজেলা থেকে এসেছেন এই বউ মেলায়। মেলার ভিতরে কোনো পুরুষ না থাকায় অনেক স্বাচ্ছন্দ্যে কেনাকাটা করেছেন এবং দামও কিছুটা কম ছিল বলে জানান। \হমেলার দোকানি মর্জিনা বেগম জানান, প্রতি বছরের মতো এবারও বগুড়া থেকে ধুনটের এই বউ মেলায় এসেছেন। গত বছরের তুলনায় এ বছর বউ মেলায় ক্রেতাদের অনেক ভিড় ছিল। তাই বেচা-বিক্রিও ভালো হয়েছে। সরকারপাড়া বউ মেলা কমিটির সভাপতি নিতাই চন্দ্র দেব জানান, শান্তিপূর্ণ পরিবেশে দুর্গা পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রতিমা বিসর্জন উপলক্ষে প্রতি বছরের মতো এবারও ঐতিহ্যবাহী বউ মেলায় ক্রেতা ও দর্শনার্থীদের উপচেপড়া ভিড় ছিল লক্ষণীয়। ধুনট পৌরসভার মেয়র এজিএম বাদশা জানান, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে এই বউ মেলা। দূর-দূরান্ত থেকে আগত হিন্দু-মুসলিমসহ বিভিন্ন ধর্মের হাজার হাজার মানুষের সমাগমে মুখরিত হয় মেলা প্রাঙ্গণ। ধুনট উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অধ্যক্ষ বিকাশ চন্দ্র সাহা জানান, শান্তিপূর্ণ পরিবেশে এই উপজেলা পৌরসভাসহ ১০টি ইউনিয়নে ২৯টি মন্দিরে দুর্গা পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ধুনট থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই আসাদুজ্জামান জানান, প্রতিটি পূজা মন্ডপেই আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের কঠোর নজরদারি ছিল। ক্যাপ বগুড়ার ধুনট পৌর এলাকার সরকারপাড়া ইছামতি নদীর তীরে শতাব্দী প্রাচীন 'বউ মেলা'য় কেনাকাটায় ব্যস্ত মহিলারা
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে