logo
বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

  আসাদুজ্জামান মিঠু, তানোর   ২০ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০  

শ্রমিক সংকটে বিপাকে কৃষক

শ্রমিক সংকটে বিপাকে কৃষক
রাজশাহীর তানোরে জমি থেকে ধান কাটছেন কৃষকরা -যাযাদি
বরেন্দ্র অঞ্চলে আমন কাটা-মাড়াই শুরু হয়েছে কার্তিক মাসের শেষ সপ্তাহ থেকে। এখন চলছে অগ্রহায়ণ মাস। অগ্রহায়ণ মাস পড়লেও ধান কাটা শ্রমিকের সংকটে পুরোদমে আমন কাটা শুরু করতে পারেনি বরেন্দ্র অঞ্চলের কৃষকরা।

মাঠে মাঠে ধান পেকে ঝনঝনে হয়ে গেছে। তবুও মিলছে না কৃষিশ্রমিক। তাই কৃষিশ্রমিক সংকটে সোনালি ফসল ঘরে তোলা নিয়ে বিপাকে পড়েছেন কৃষকরা।

এছাড়াও আমন ওঠার সঙ্গে সঙ্গে বরেন্দ্র অঞ্চলের বড় অংশজুড়ে আলু, সরিষা, পিয়াজ, গম, মুসুরসহ নানা রকম রবিশস্যের আবাদ করে থাকেন কৃষকরা। এবার সময়মতো ধান কেটে ঘরে না আনতে পারলে সে লাভজনক ফসলটি বপন করতে পারবেন কি না সে নিয়ে চরম দুশ্চিন্তায় পড়েছেন কৃষকরা।

বরেন্দ্র অঞ্চলের কৃষকরা জানান, কার্তিক মাস থেকে আমন কাটামাড়াই শুরু হলেও এখন পর্যন্ত মাত্র ২০ ভাগ ধান উঠানে তুলতে পেরেছে কৃষকরা। ধান কাটা শ্রমিক সংকটে বাকি ৮০ ভাগ ধান মাঠে পাকা অবস্থায় পড়ে আছে।

কৃষকরা আরো জানান, প্রতি বছর আমন কাটামাড়াই মৌসুম শুরুর আগে কয়েক হাজার ধান কাটা শ্রমিক চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা থেকে আসে বরেন্দ্র অঞ্চলে। কিন্ত এবার ধানের ফলন কম ও বাজারে ধানের দাম না থাকায় শ্রমিকরা আসছে না। আর যারা ধান কাটছেন তারাও বেশি মজুরিতে চুক্তি করে কাটছেন।

রাজশাহী জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্য মতে, চলতি মৌসুমে রাজশাহী জেলায় আমনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৭৩ হাজার ৩৮৭ হেক্টর জমিতে। এছাড়াও রাজশাহী অঞ্চলের রাজশাহী, নঁওগা, নাটোর ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় আমন চাষাবাদ হবে আরো ৩ লাখ ৫০ হাজার হেক্টরের উপরে।

রাজশাহী তানোর উপজেলার ময়েনপুর গ্রামের কৃষক জুনায়েত আলী জানান, চলতি বছর তিনি ১২ বিঘা জমিতে আমন চাষাবাদ করেছেন। ১৫ দিন আগে থেকে মাঠে ধান পেকে ঝনঝনে হয়ে আছে। অতিরিক্ত অর্থ দিয়েও শ্রমিক মিলছে না। তাই সময়মতো ঘরে ধান তুলতে পারবেন কি না সে নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন তিনি।

তানোর উপজেলা উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা রাকিবুল ইসলাম জানান, কৃষিশ্রমিক সংকট থাকলেও সময়মতো ধান ঘরে তুলতে দিনরাত মাঠে কাজ করছেন স্থানীয় কৃষিশ্রমিক ও কৃষকরা। সবেমাত্র অগ্রহায়ণ মাস পড়েছে। এখন পর্যন্ত প্রায় ২৫ থেকে ৩০ ভাগ ধান উঠানে তুলতে পেরেছেন কৃষকরা। বাকিগুলো সময় একটু বেশি লাগলেও সকল মাঠের ধান উঠে যাবে। তবে, রবিশস্যতে কৃষকদের সময় পেরিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে