শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১

গাংনী ও মুজিবনগরে ভেজাল বীজে কপি চাষিদের মাথায় হাত

মজনুর রহমান আকাশ, গাংনী (মেহেরপুর)
  ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ১৪:৫৬
গাংনী ও মুজিবনগরে ভেজাল বীজে কপি চাষিদের মাথায় হাত

মেহেরপুরের গাংনী উপজেলায় সবজি গ্রামখ্যাত সাহারবাটি গ্রামের কপি চাষি আজমাইন। তিনি নিজের দুই বিঘা জমি ছাড়াও এক বিঘা জমি লীজ নিয়ে আগাম জাতের বাঁধা কপি চাষ করেছেন।

চাষাবাদে অন্ততঃ লাখ টাকা খরচ হয়। ক্ষেতে চারা গজালেও অদ্যাবদি কোন পাতা বাধেনি। আশা ছিল তিন থেকে সাড়ে তিন লাখ টাকা আয় করবেন। কিন্তু বিধি বাম। জেবিটি সিডসের রাজাসান কপির বীজ কিনে বেশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তিনি। কপি ক্ষেত বড় হলেও পাতা বাধেনি। এতে বড় অংকের টাকা ক্ষতি হয়েছে তার। শুধু আজমাইন নয়, তার মতে গাংনী ও মুজিবনগর এলাকার সাড়ে তিনশ’ চাষি এই ক্ষতির সম্মুখীন। তবে কৃষি অফিস বলছে- ঘটনাটি তদন্ত করে দোষি ব্যক্তির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

কৃষি অফিসের তথ্যানুযায়ি, মেহেরপুরের গাংনী ও মুজিবনগর মাঠে সবধরনের সবজি চাষ করা হয়। শীতের আগাম সবজি হিসেবে এ অঞ্চলে সাড়ে ৭৫০ হেক্টর জমিতে ফুলকপি ও বাঁধা কপির চাষ করা হয়। এখন মাঠে রয়েছে আগাম বাধা কপি। তবে এখন বাঁধা কপির ফলন বিপর্যয় ঘটেছে। বীজ কোম্পানির লোকজন নি¤œমানের বীজ সরবরাহ করায় কপির পাতা বাঁধেনি। নিয়ম অনুযায়ী ৬০ থেকে ৬৫ দিনের মধ্যে পাতা বাঁধার কথা। অথচ জেবিটি সিডসের রাজাসান কপির বীজ কিনে চাষিরা বেশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন।

জানা গেছে, আগাম বাধাকপি চাষে প্রতিবছর কৃষকরা লাভবান হলেও এবার ফলন বিপর্যয় ঘটেছে বাঁধা কপিতে। বীজ ব্যবসায়ীরা নি¤œমানের বীজ সরবরাহ করায় গাংনী ও মুজিবনগর এলাকায় অন্ততঃ তিনশ’ হেক্টর হেক্টর জমির কপির পাতা বাঁধেনি। এতে অন্তত কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করেছেন কৃষকরা।

চাষিরা জানান, স্থানীয় বাজার থেকে জেবিটি সিডসের সরবরাহকৃত রাজাসান বীজ ব্যবহার করা হয়। বীজ থেকে গাছ জন্মালেও এখন পাতা বাঁধছে না। অন্যান্য কোম্পানির দেওয়া বীজ রোপন করে তারা বাঁধাকপি বাজারে তুলেছেন অথচ জেবিটি কোম্পানির রাজাসান কপি আজও পাতা বাঁধেনি। একেকটি গাছের ৩-৪টি ডগা গজিয়েছে। আবার অনেকটা পাতা কোকড়ানো। সার বীজ দিয়েও কোনো লাভ হচ্ছে না। বিঘাপ্রতি ৫৫ থেকে ৬০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে এ কপি চাষে। অন্তত সাড়ে তিনশ’ চাষি এ প্রতারণার স্বীকার।

সরেজমিনে গাংনীর সাহারবাটি নওপাড়া ও মুজিবনগররাজাসন বীজ ব্যবহার কারীদের কপিক্ষেতে কপির পাতা বাধেনি। কপির পাতা কুকড়িয়ে ও পচে যাচ্ছে। অন্যরা অন্যান্য কোম্পানির দেওয়া বীজ রোপন করে তারা বাঁধাকপি বাজারে তুলেছেন অথচ জেবিটি কোম্পানির রাজাসান কপি আজও পাতা বাঁধেনি। তারা জানান, একেকটি গাছের ৩-৪টি ডগা গজিয়েছে। আবার অনেকটা পাতা কোকড়ানো। পাতা পচে যাচ্ছে। সার বীজ দিয়েও কোনো লাভ হচ্ছে না। বিঘাপ্রতি ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে এ কপি চাষে। অনেকেই বাধ্য হয়ে জমিতে চাষ দিয়ে অন্য ফসল আবাদের প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

বীজ সরবরাহকারী আনারুল ইসলাম জানান, তিনি মূলত সার ও বিষের ব্যবসা করেন। মেহেরপুর বড় বাজারের সুমনা বীজ ভান্ডার থেকে বীজ এনে চাষীদের দেয়া হয়েছে। কপির পাতা বাধেনি বিষয়টি সুমনকে জানানো হলেও তার কোন সাড়া মিলছে না। বিভিন্ন ভাবে সে সময় ক্ষেপন করছে। গাংনী উপজেলা কৃষি অফিসার এমরান হোসেন ও মুজিবনগর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন জানান, চাষিদের কাছ থেকে বিষয়টি শুনেছি। চাষিদের লিখিত অভিযোগ দিতে বলা হয়েছে। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
X
Nagad

উপরে