শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

সংবাদ সংক্ষেপ

নতুনধারা
  ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০০:০০
দুটি প্রকল্পে সম্মাননা পেল এটুআই ম বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ডেস্ক তথ্যপ্রযুক্তির অন্যতম বিশ্ব সম্মেলন ওয়ার্ল্ড কংগ্রেস অন ইনোভেশন অ্যান্ড টেকনোলজির (ডবিস্নউসিআইটি ২০২২) দ্বিতীয় দিনে 'উইটসা অ্যাওয়ার্ড নাইট'-এ অ্যাস্পায়ার টু ইনোভেট (এটুআই) প্রকল্প 'ন্যাশনাল পোর্টাল ফ্রেমওয়ার্ক' প্রকল্পের জন্য উইটসার চেয়ারম্যান অ্যাওয়ার্ডে ভূষিত হয়েছে। বিশ্বজুড়ে ১৬৫টি প্রকল্পের মধ্যে এটুআইয়ের প্রকল্প শ্রেষ্ঠ প্রকল্প হিসেবে এই সম্মাননা অর্জন করে। 'ন্যাশনাল পোর্টাল ফ্রেমওয়ার্ক' প্রকল্পটি ডিজিটাল গর্ভন্যান্সের ওপর বিশ্বব্যাপী এক অনন্য দৃষ্টান্ত। সম্প্রতি মালয়েশিয়ার পেনাং-এর সেটিয়া স্পাইস কনভেনশন সেন্টারে 'উইটসা অ্যাওয়ার্ড নাইট'-এ এটু্‌আইয়ের আরও একটি প্রকল্প 'কোভিড-১৯ ন্যাশনাল ড্যাশবোর্ড' ইনোভেটিভ ইহেলথ সলিউশনস অ্যাওয়ার্ড ক্যাটাগরিতে সম্মাননা অর্জন করে। তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে দেশের স্বাস্থ্য খাতে অবদানের জন্য এই প্রকল্প অ্যাওয়ার্ড অর্জন করে। উইটসা অ্যাওয়ার্ড নাইট অনুষ্ঠানে উইটসার চেয়ারম্যান ইয়ানিস সিরোস, দ্য ন্যাশনাল টেক অ্যাসোসিয়েশন অব মালয়েশিয়ার (পিকম) চেয়ারম্যান ডক্টর সিন সিয়াহ, উইটসার রিজিওনাল ভাইস চেয়ারম্যান ও বিসিএস সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার সুব্রত সরকার পেনাং স্টেট এক্সকো ফর টু্যরিজম অ্যান্ড ক্রিয়েটিভ ইকোনমির সভাপতি ইয়েউহ সুন হিনসহ অন্যান্য অতিথিরা মঞ্চে উপবিষ্ট থেকে এই অ্যাওয়ার্ড প্রদান করেন। এটুআইয়ের পক্ষে এই অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ করেন প্রকল্প পরিচালক ডক্টর দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ুন কবির। ওয়ার্ল্ড ইনোভেশন, টেকনোলজি অ্যান্ড সার্ভিস অ্যালায়েন্স (উইটসা) প্রতি বছর এই পুরস্কারের আয়োজন করে থাকে। বিশ্ব তথ্যপ্রযুক্তি খাতে একে সম্মানজনক পুরস্কার হিসেবে বিবেচনা করা হয়। দেশে বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি (বিসিএস) তথ্যপ্রযুক্তি খাতের বিশ্ব সংগঠন উইটসার একমাত্র সদস্য। তথ্যপ্রযুক্তিতে বিশেষ ভূমিকা পালনকারী বিভিন্ন প্রকল্পকে উইটসার এই বিশ্ব সম্মাননার জন্য প্রতি বছর বিসিএস মনোনয়ন প্রদান করে। বাংলাদেশের সাফল্যে অভিনন্দন জানিয়ে উইটসার চেয়ারম্যান ইয়ানিস সিরোস বলেন, তথ্যপ্রযুক্তি খাতে সাফল্যের সঙ্গে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। উইটসা অ্যাওয়ার্ড অর্জনের জন্য আমি এটুআইকে অভিনন্দন জ্ঞাপন করছি। বৈশ্বিক এই সংকটময় মুহূর্তে প্রযুক্তির উৎকর্ষ আমাদের সমস্যা মোকাবিলার হাতিয়ার হিসেবে কাজ করবে বলেই আমার বিশ্বাস। উইটসা অ্যাওয়ার্ড অর্জন প্রসঙ্গে বিসিএস সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার সুব্রত সরকার বলেন, বিসিএস প্রযুক্তি সংগঠনগুলোর অভিভাবক হিসেবে বরাবর কাজ করে আসছে। দেশের উদ্ভাবন এবং কার্যকর প্রকল্পকে উইটসার কাছে ঠিকমতো উপস্থাপন করা হয়েছে বলেই আজ আমরা সফলতা অর্জন করেছি। দেশের প্রযুক্তি খাতকে বিশ্বে সমাদৃত করতে বিসিএস সব সময় কাজ করে আসছে এবং আমাদের এই প্রচেষ্টা চলমান থাকবে। বেসিস ন্যাশনাল আইসিটি অ্যাওয়ার্ডসের নিবন্ধন শুরু ম বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ডেস্ক পঞ্চমবারের মতো 'বেসিস ন্যাশনাল আইসিটি অ্যাওয়ার্ডস' আয়োজন করতে যাচ্ছে দেশের সফটওয়্যার ও তথ্যপ্রযুক্তি সেবা খাতের জাতীয় বা বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস), যেখানে থাকবে মোট ৩৬টি ক্যাটাগরিতে ১০৮টি পুরস্কার। মঙ্গলবার বেসিস কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান বেসিস সভাপতি রাসেল টি আহমেদ। পুরস্কারপ্রাপ্ত সেরা প্রকল্পগুলো এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় তথ্যপ্রযুক্তি খাতের অস্কার হিসেবে খ্যাত অ্যাপিকটা অ্যাওয়ার্ডসের আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় অংশ নেবে। উদ্ভাবনীমূলক পণ্য ও সেবা প্রকল্পগুলোকে স্বীকৃতি দিতে এবারের আসরে মোট ৩৬টি ক্যাটাগরিতে ১০৮টি পুরস্কার প্রদান করা হবে। আয়োজনে অংশ নিতে আগ্রহীদের একটি প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে হবে। সেজন্য বেসিস ন্যাশনাল আইসিটি অ্যাওয়ার্ডসের অফিশিয়াল ওয়েবসাইট (যঃঃঢ়ং://নহরধ.নধংরং.ড়ৎম.নফ/)-এ গিয়ে আগ্রহীদের নিবন্ধন করতে হবে। আগামী ২ অক্টোবর পর্যন্ত এই নিবন্ধন করা যাবে। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বেসিস ন্যাশনাল আইসিটি অ্যাওয়ার্ডস ২০২২-এর আহ্বায়ক ও বেসিস অ্যাডভাইজরি স্ট্যান্ডিং কমিটির সভাপতি এম রাশিদুল হাসান, বেসিস অ্যাডভাইজরি স্ট্যান্ডিং কমিটির সহসভাপতি শাহ ইমরাউল কায়ীশ, বেসিস অ্যাডভাইজরি স্ট্যান্ডিং কমিটির সহসভাপতি উত্তম কুমার পাল, বেসিস পরিচালক তানভীর হোসেন খান প্রমুখ। বেসিস সভাপতি রাসেল টি আহমেদ বলেন, বেসিস ন্যাশনাল আইসিটি অ্যাওয়ার্ডসের মাধ্যমে আমরা সারা দেশের উদ্ভাবনী ও সম্ভাবনাময় তথ্যপ্রযুক্তি পণ্য ও সেবাগুলোকে প্রতিযোগিতার মাধ্যমে বাছাই করি এবং তাদের স্বীকৃতি ও উৎসাহ প্রদান করার লক্ষ্যে পুরস্কার প্রদান করা হয়। এসব পণ্য ও সেবা দেশের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক অঙ্গনে আমাদের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের সক্ষমতা প্রকাশ করে। ডিজিটাল বাংলাদেশ থেকে স্মার্ট বাংলাদেশ বাস্তবায়নে কার্যকর প্রকল্পগুলোকে বিশেষভাবে বিবেচনা করা হবে। পুরস্কৃত সেরা প্রকল্পগুলো বরাবরের মতো এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় তথ্যপ্রযুক্তি খাতের অস্কার হিসেবে খ্যাত অ্যাপিকটা অ্যাওয়ার্ডসের আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় অংশ নেবে। বেসিস ন্যাশনাল আইসিটি অ্যাওয়ার্ডস ২০২২-এর আহ্বায়ক ও বেসিস অ্যাডভাইজরি স্ট্যান্ডিং কমিটির সভাপতি এম রাশিদুল হাসান বলেন, বিগত চারটি বেসিস ন্যাশনাল আইসিটি অ্যাওয়ার্ডসের তুলনায় এ বছর আরও বড় পরিসরে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। আশা করি, এবারের পুরস্কৃত পণ্য ও সেবাগুলো অ্যাপিকটা অ্যাওয়ার্ডসেও আগের বছরগুলোর তুলনায় বেশি পুরস্কৃত হবে এবং বিদেশে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি সমুজ্জ্বল করবে। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বেসিস নির্বাহী পরিষদ ও বেসিস প্রেসিডেন্টস অ্যাডভাইজরি স্ট্যান্ডিং কমিটির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। এবারে প্রধান বিচারকের দায়িত্ব পালন করবেন বেসিস প্রেসিডেন্টস অ্যাডভাইজরি কমিটির সদস্য আবদুলস্নাহ এইচ কাফি ও সহ-আহ্বায়ক হিসেবে থাকছেন বেসিস অ্যাডভাইজরি স্থায়ী কমিটির সদস্য লিয়াকত হোসেন।
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে