শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০
walton

জেমিনি সি ফুডের ৯১ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন

যাযাদি ডেস্ক
  ০৫ নভেম্বর ২০২৩, ১১:৫৩

খাদ্য ও আনুষঙ্গিক খাতের কোম্পানি জেমিনি সি ফুড পিএলসির ৯১ কোটি ৭৫ লাখ টাকা মূল্যমানের শেয়ার গত সপ্তাহের পাঁচ কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছে। এ লেনদেন নিয়ে আলোচ্য সপ্তাহে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সর্বোচ্চ লেনদেনের তালিকায় চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে কোম্পানিটি। স্টক এক্সচেঞ্জ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

তথ্য অনুসারে, গত সপ্তাহে ডিএসইতে জেমিনি সি ফুডের মোট ১১ লাখ ৬৭ হাজার ৩০৯টি শেয়ার লেনদেন হয়েছে। আলোচ্য সপ্তাহে ডিএসইর মোট লেনদেনে কোম্পানিটির অবদান ছিল ৪ দশমিক ১৮ শতাংশ। কোম্পানিটির শেয়ারদর এ সময়ে ৬ দশমিক ১৭ শতাংশ কমেছে।

সর্বশেষ সমাপ্ত ২০২২-২৩ হিসাব বছরে জেমিনি সি ফুডের শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১৫ টাকা ৪৭ পয়সা, আগের হিসাব বছরে যা ছিল ৯ টাকা ৬১ পয়সা। গত ৩১ জুন শেষে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ২৫ টাকা ৩ পয়সায়, আগের হিসাব বছরে যা ছিল ১০ টাকা ৭ পয়সা।

আলোচ্য হিসাব বছরে কোম্পানিটি উদ্যোক্তা পরিচালক বাদে অন্য বিনিয়োগকারীদের জন্য ২০ শতাংশ নগদ ও ১০০ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে।

সমাপ্ত ২০২১-২২ হিসাব বছরের জন্য শেয়ারহোল্ডারদের মোট ৪০ শতাংশ লভ্যাংশ দিয়েছে জেমিনি সি ফুড। এর মধ্যে ১০ শতাংশ নগদ (উদ্যোক্তা ও পরিচালক বাদে) ও ৩০ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ।

সমাপ্ত ২০২০-২১ হিসাব বছরে উদ্যোক্তা পরিচালক বাদে অন্য শেয়ারহোল্ডারদের ৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে জেমিনি সি ফুড। আলোচ্য হিসাব বছরে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েচে ৭২ পয়সা। আগের হিসাব বছরে শেয়ারপ্রতি লেকাসান ছিল ৯ টাকা ৮৩ পয়সা।

২০১৯-২০ হিসাব বছরে শেয়ারহোল্ডারদের কোনো লভ্যাংশ দেয়নি কোম্পানিটি। ২০১৮-১৯ হিসাব বছরে শেয়ারহোল্ডারদের ১০ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ দেয় তারা। ২০১৭-১৮ হিসাব বছরে ১৫ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ দিয়েছিল কোম্পানিটি। এছাড়া ২০১৬-১৭ হিসাব বছরের জন্য ১২৫ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ পেয়েছিলেন কোম্পানিটির শেয়ারহোল্ডাররা।

১৯৮৫ সালে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত জেমিনি সি ফুডের অনুমোদিত মূলধন ৪০ কোটি ও পরিশোধিত মূলধন ৬ কোটি ১০ লাখ ৫০ হাজার টাকা। রিজার্ভে রয়েছে ৫ লাখ টাকা। কোম্পানিটির মোট শেয়ার সংখ্যা ৬১ লাখ ৫ হাজার ২০৬। এর মধ্যে ৩০ দশমিক শূন্য শূন্য ১ শতাংশ উদ্যোক্তা পরিচালক, ১২ দশমিক ১৭ শতাংশ প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী, দশমিক ১৮ শতাংশ বিদেশী বিনিয়োগকারী ও বাকি ৫৭ দশমিক ৬৪ শতাংশ শেয়ার সাধারণ বিনিয়োগকারীর কাছে রয়েছে।

যাযাদি/ এসএম

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে