নানা আয়োজনে ঢাকা থিয়েটারের ৪৮ বছর

নানা আয়োজনে ঢাকা থিয়েটারের ৪৮ বছর
ঢাকা থিয়েটারের বহুল আলোচিত 'বিনোদিনী' নাটকের দৃশ্য

আজ থেকে ৪৮ বছর আগে 'মৌলিক নাটক মঞ্চায়নের মাধ্যমে বাংলা নাটকের মুক্তি' স্স্নোগান নিয়ে যাত্রা শুরু হয়েছিল দেশের মঞ্চ নাটকের দল 'ঢাকা থিয়েটার'-এর। দেখতে দেখতে কেটে গেল এই সংগঠনের চার যুগ। দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখতে গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় দলের পক্ষ থেকে অনলাইনে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সশরীরে না হলেও সংগঠনের সবার অংশগ্রহণে নানা আয়োজনে অনুষ্ঠানটি হয়ে ওঠে প্রাণবন্ত। এতে আলোচনায় অংশ নেন ঢাকা থিয়েটারের নাট্যকর্মীরা। এছাড়া কবিতা আবৃত্তি, অভিনয় ও গানের সুরে জমে ওঠে পুরো অনুষ্ঠান।

স্বাধীনতার পর ১৯৭৩ সালে কাজ শুরু করেছিল দেশের অন্যতম সেরা নাটকের দল 'ঢাকা থিয়েটার'। এটি এখন দেশের মঞ্চপ্রেমীদের কাছে অতি পরিচিত নাম। দেশের বাইরেও নাটক মঞ্চায়ন করে প্রশংসা কুড়িয়েছে 'ঢাকা থিয়েটার'। ১৯৭৩ সালে যুগল নাটক দিয়ে দর্শনীর বিনিময়ে ঢাকা থিয়েটার প্রদর্শনী শুরু করেছিল। নাটক দুটি হচ্ছে নাসির উদ্দিন ইউসুফ নির্দেশিত 'সংবাদ কার্টুন' ও হাবিবুল হাসান নির্দেশিত 'সম্রাট ও প্রতিদ্বন্দ্বীগণ'। মহান মুক্তিযুদ্ধে গেরিলা যোদ্ধা নাসির উদ্দিন ইউসুফ ঢাকা থিয়েটারের প্রধান পুরুষ। তিনি ও সংস্কৃতিমনা কয়েকজন মিলে নাটকের দলটি প্রতিষ্ঠা করেন ১৯৭৩ সালে। সেই বছরের ২৯ জুলাই প্রথম নাটক মঞ্চায়নের দিন ধার্য করা হয়। কিন্তু, সেদিন তুমুল বৃষ্টিতে পানি ওঠে গিয়েছিল ঢাকা জেলা ক্রীড়া সমিতি মিলনায়তনে। ফলে, মঞ্চায়ন সম্ভব হয়নি। পরে ১৯৭৩ সালের নভেম্বরে দুই টাকা দর্শনীর বিনিময়ে নাটক মঞ্চায়ন শুরু করে ঢাকা থিয়েটার। নাসির উদ্দিন ইউসুফ বলেন, 'আমরা ২৯ জুলাইকে ঢাকা থিয়েটারের প্রতিষ্ঠার দিন ধরি। সেই হিসাবে আজ আমাদের দলের ৪৮ বছর হলো।'

ঢাকা থিয়েটার চার দশকেরও বেশি সময়ের পথচলায় বেশ কিছু আলোচিত ও সাড়া জাগানো নাটক মঞ্চে এনেছে। তাদের প্রশংসিত নাটকগুলোর মধ্যে রয়েছে 'কিওনখোলা, 'যৈবতি কন্যার মন', 'বনপাংশুল', 'কেরামত মঙ্গল', 'মুনতাসির ফ্যান্টাসি', 'বিনোদিনী', 'প্রাচ্য', 'মার্চেন্ট অব ভেনি', 'শকুন্তলা', 'নিমজ্জন', 'চাকা', 'ধাবমান', 'হাত হদাই', 'দ্য টেম্পেস্ট', 'পঞ্চনারী আখ্যান', 'পুত্র' ইত্যাদি। কলকাতার মঞ্চেও নাটক প্রদর্শনী করে প্রশংসা পেয়েছে এই দলটি। এছাড়া, লন্ডনের গেস্নাব থিয়েটারে বাংলা ভাষায় 'দ্য টেম্পেস্ট' মঞ্চস্থ হয়। নাসির উদ্দিন ইউসুফ নাটকটির নির্দেশক ছিলেন। নাসির উদ্দিন ইউসুফ বলেন, 'গেস্নাব থিয়েটারে নাটকটি মঞ্চায়ন করে ঢাকা থিয়েটার অনেকের প্রশংসা পেয়েছে। বিদেশে এটি ঢাকা থিয়েটার ও আমাদের দেশের নাটকের বড় অর্জন।'

এই দলের বেশিরভাগ নাটকের নাট্যকার ছিলেন সেলিম আল দীন। নাসির উদ্দিন ইউসুফ ও সেলিম আল দীন কেবল ঢাকা থিয়েটারের নয়, বাংলাদেশের মঞ্চ নাটকে গুরুত্বপূর্ণ নাম। অনেক তারকা অভিনয়শিল্পীর উৎপত্তিস্থল ঢাকা থিয়েটার। নাটক-সিনেমার অনেক বড় বড় অভিনেতা-অভিনেত্রীর অভিনয়ের যাত্রা শুরু হয়েছিল এই সংগঠন থেকে। এই দলের হয়ে এক সময় নিয়মিত মঞ্চে নাটক করেছেন হুমায়ূন ফরীদি, আফজাল হোসেন, সুবর্ণা মুস্তাফা, রাইসুল ইসলাম আসাদ, শমী কায়সার, শহীদুজ্জামান সেলিমসহ অনেক অভিনয় শিল্পী।

ঢাকা থিয়েটার সবচেয়ে বেশি মঞ্চায়িত হয়েছে 'বিনোদিনী'। বিনোদনী চরিত্রে অভিনয় করে অনেক প্রশংসা পেয়েছেন শিমুল ইউসুফ। এখনো ঢাকার মঞ্চে সরব 'ঢাকা থিয়েটার'। করোনাকালেও দলটি নতুন নাটক মঞ্চে এনেছে। নাটকটির নাম 'একটি লৌকিক অথবা অলৌকিক স্টিমার'। এর নির্দেশনা দিয়েছেন শহীদুজ্জামান সেলিম। এটি ঢাকা থিয়েটারের ৪৯তম প্রযোজনা।

ঢাকা থিয়েটার সীমাবদ্ধ থাকেনি, সমৃদ্ধ হয়েছে। ১৯৮৩ সালে ঢাকা থিয়েটারের তত্ত্বাবধানে প্রতিষ্ঠিত হয় 'গ্রাম থিয়েটার'। এটি দীর্ঘ দিনের পথচলায় সফলতা ধরে রেখেছে। এ বিষয়ে নাসির উদ্দিন ইউসুফ বলেন, 'আমাদের ইচ্ছা গ্রামে-গ্রামে মঞ্চ গড়ে তোলা। জীবদ্দশায় হয়তো সবগুলো দেখে যেতে পারব না, আমার বয়স এখন ৭১ বছর। সারা দেশে গ্রামগুলোতে আমরা যদি অন্তত ৫০০ মঞ্চ তৈরি করতে পারি তাহলে তা নাটকের জন্য অনেক বড় কাজ হবে।'

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে