আন্তর্জাতিক ফুটবল হবে কুমিলস্না স্টেডিয়ামে !

আন্তর্জাতিক ফুটবল হবে কুমিলস্না স্টেডিয়ামে !
কুমিলস্নার ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত স্টেডিয়াম

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার ফুটবল লিগের (বিপিএল) ভেনু্য শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত স্টেডিয়ামে আন্তর্জাতিক ম্যাচ আয়োজন করার পরিকল্পনা বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের। সে লক্ষ্যে স্টেডিয়ামটিকে আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন করতে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের সঙ্গে আলোচনা করেছে বাফুফে। সোমবার স্টেডিয়াম পরিদর্শন করে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের সচিব মো. মাসুদ করিম। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাফুফের সাধারণ সম্পাদক আবু নাইম সোহাগ।

এ বিষয়ে সোহাগ জানান, 'সোমবার আমরা জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের সঙ্গে যৌথভাবে কুমিলস্না স্টেডিয়ামটি পরিদর্শন করেছি। আমাদের বাংলাদেশ প্রিমিয়ার ফুটবল লিগের অন্যতম একটি ভেনু্য হচ্ছে এই শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত স্টেডিয়াম। সাম্প্রতিক সময়ে কুমিলস্না স্টেডিয়ামে আমাদের যে অভিজ্ঞতা হয়েছে, তা আমাদের সেখানে আরও বেশি ফুটবলীয় সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধিতে উদ্বুদ্ধ করেছে। আর সে কারণেই আমরা ক্রীড়া পরিষদের সঙ্গে যোগাযোগ করি। তিন-চার মাস আগে এ বিষয়ে ক্রীড়া পরিষদের সঙ্গে আমাদের একটি সভা হয়েছিল। যার পরিপ্রেক্ষিতে আমরা চাচ্ছিলাম সেখানে সরেজমিনে পরিদর্শন করতে। কিন্তু বিধিনিষেধ চলাকালীন সময়ে সেটি সম্ভব হয়নি। তাই এটি গতকাল (সোমবার) করেছি।'

এই মাঠে প্রিমিয়ার লিগের পাশাপাশি নিয়মিত আন্তর্জাতিক ম্যাচও আয়োজন করার ইচ্ছা আছে বাফুফের। কিন্তু সেটি করতে গেলে একটি আন্তর্জাতিক ভেনু্যতে ফিফা-এএফসি স্বীকৃত যে সুযোগ-সুবিধাগুলো থাকা দরকার তার সব পূরণ করতে হবে। সে কারণেই বাফুফে দারস্থ হয়েছে ক্রীড়া পরিষদের। যেহেতু মাঠের মালিক ক্রীড়া পরিষদ। বাফুফে চাইলেও তাদের পছন্দ অনুযায়ী মাঠ প্রস্তুত করতে পারবে না। এ বিষয়ে বাফুফের সাধারণ সম্পাদক বলেছেন, 'যেহেতু কুমিলস্নার এই স্টেডিয়ামে আমাদের দর্শকদের অনেক উৎসাহ দেখা যায় এবং বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের অন্যতম দুটি ক্লাব বসুন্ধরা কিংস ও মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের হোম ভেনু্য এটি। এ স্টেডিয়ামে দর্শকের ভালো উদ্দীপনা দেখা যাওয়ায় আমরা বাফুফে থেকেও চিন্তা করেছি এই মাঠে আন্তর্জাতিক ম্যাচ আয়োজনের। কিন্তু আন্তর্জাতিক মানের স্টেডিয়ামে যে সুবিধাগুলো থাকা দরকার সেগুলো এই স্টেডিয়ামে নেই, তাই এ বিষয়গুলো নিশ্চিত করা জরুরি। সেই প্রেক্ষাপটে এই স্টেডিয়ামের ফ্লাড লাইট, ড্রেসিং রুমসহ আরও যে সুবিধা রয়েছে সেগুলো নিশ্চিত করার পাশাপাশি গ্যালারিতে চেয়ার বসানো নিশ্চিত করা দরকার। সেটার সঙ্গে সঙ্গে আনুষঙ্গিক যে বিষয়গুলো আছে। যেমন সেখানে একটা টিকিট কাউন্টার, পুরো স্টেডিয়ামের নিরাপত্তা ব্যবস্থাটা আরেকটু উন্নত করা।'

'এ বিষয়গুলো নিয়েই আমরা সরেজমিনে সেখানে কাজ করে এসেছি। জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ থেকে যে ফিডব্যাকটা পেয়েছি। তারা তড়িৎ গতিতে কাজ করলে খুব শীঘ্রই সেটি বাস্তবায়ন সম্ভব হবে। আমরা আশাবাদী এই স্টেডিয়ামে ফিফা-এএফসির শর্তগুলো পূরণ করার উদ্যোগ অচিরেই নেওয়া হবে'- যোগ করেন সোহাগ।

ঢাকা থেকে সর্বোচ্চ দুই ঘণ্টায় পৌঁছে যাওয়া যায় এই স্টেডিয়ামে। তাই বাফুফের চাওয়াগুলো পূরণ হলে ঘরোয়া ও আন্তর্জাতিক ম্যাচের চাপ কমবে ঢাকার বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামের উপর। সোহাগ জানান, 'আমাদের বাফুফের পক্ষ থেকে সেখানে ফ্লাড লাইট স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়ার কথা জানানো হয়েছে। প্রচন্ড গরমের মধ্যেও ফ্লাড লাইট না থাকায় আমাদের কুমিলস্না, টঙ্গীর শহীদ আহসানউলস্নাহ মাস্টার স্টেডিয়াম ও মুন্সীগঞ্জ স্টেডিয়ামে দিনের বেলায় প্রিমিয়ার লিগের ম্যাচ আয়োজন করতে হয়েছে। অনেক সময় সিজনাল বিভিন্ন ইসু্যর (দাবদাহ, বৃষ্টি) কারণে দিনে সূর্যালোকে ম্যাচ আয়োজন করা সম্ভব হয় না। আন্তর্জাতিক ম্যাচ আয়োজন করতে ফ্লাড লাইটই সব থেকে উপযোগী। আমরা মনে করি কুমিলস্নায় ফ্লাড লাইট খুবই জরুরি। এছাড়া ফিফার শর্তগুলো যদি পূরণ সম্ভব হয়, সেখানে আন্তর্জাতিক ম্যাচ আয়োজন সম্ভব হবে।'

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে