মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

সত্যিই কি তুরস্কে নূহের নৌকার সন্ধান পাওয়া গেছে?

যাযাদি ডেস্ক
  ০১ এপ্রিল ২০২৪, ১৯:৪৫
আপডেট  : ০১ এপ্রিল ২০২৪, ১৯:৪৮
সত্যিই কি তুরস্কে নূহের নৌকার সন্ধান পাওয়া গেছে?

মুসলিমদের কাছে নূহ নবী (আঃ) নৌকার গল্পকে সবচেয়ে বেশি চর্চিত ধর্মীয় গল্পগুলোর একটি হিসেবে বিবেচনা করা হয়। বলা হয়ে থাকে যে, এই গল্প শোনেননি, এমন লোক পৃথিবীতে খুব কমই আছেন।

সেমেটিক ধর্মবিশ্বাসীদের মতে, সেমেটিক ধর্ম গোষ্ঠীদের (ইহুদি, খ্রিস্টান ও ইসলাম ধর্মকে সেমেটিক ধর্ম বলা হয়) মাঝে নূহ নবী (আঃ) কে সৃষ্টিকর্তা পাঠিয়েছিলেন মানবজাতির পথপ্রদর্শক হিসেবে।

এসব ধর্মের অনুসারীরা বিশ্বাস করেন যে, আল্লাহর নির্দেশে নূহ নবী এমন একটি নৌকা বানিয়েছিলেন, মহাপ্লাবনের সময় যেটিতে আশ্রয় নিয়ে মানুষ ও পৃথিবীর অন্যান্য প্রাণিকূল নিজেদের অস্তিত্ব রক্ষা করেছিল।

কিন্তু মহাপ্লাবনের পর বিশাল আকৃতির সেই নৌকার পরিণতি ঠিক কী হয়েছিল? সেটির অস্তিত্ব কি এখনও টিকে আছে? যদি টিকে থাকে, তাহলে নৌকাটি ঠিক কোথায় রয়েছে?- এমন নানান প্রশ্ন শত শত বছর ধরে মানুষের মনকে আচ্ছন্ন করে রেখেছে।

এসব প্রশ্নের উত্তর খুঁজে পেতে অনুসন্ধানও কম চালানো হয়নি। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি অনুসন্ধান চালানো হয়েছে তুরস্কের আরারাত পর্বতে, যেটির উচ্চতা পাঁচ হাজার মিটারেরও বেশি।

কারণ মহাপ্লাবনের পর এই পর্বতেই নূহের নৌকা নোঙর ফেলেছিল বলে খ্রিস্টানদের ধর্মগ্রন্থ বাইবেলে উল্লেখ করা হয়েছে।

বিভিন্ন সময় সেখানে নূহের নৌকা খুঁজে পাওয়ার দাবিও করেছেন অনেকে। যদিও তাদের কেউই নিজেদের দাবির পক্ষে পর্যাপ্ত প্রমাণ দেখাতে পারেননি।

তবে সম্প্রতি গবেষকদের একটি দল দাবি করেছে যে, তুরস্কে তারা অন্তত পাঁচ হাজার বছর আগের বিশাল একটি নৌকার ‘ধ্বংসাবশেষ’ খুঁজে পেয়েছেন। এটি নূহের নৌকার ধ্বংসাবশেষ বলেই ধারণা করছেন তারা।

বাইবেল এবং কুরআনে নূহের নৌকা বানানোর প্রেক্ষাপট ও মহাপ্লাবনের প্রায় একই ধরনের দু’টি বর্ণনা পাওয়া যায়।

মহাপ্লাবনের প্রেক্ষাপট তুলে ধরে বাইবেলের আদি পুস্তক ‘দ্য বুক অব জেনেসিসে’ বলা হয়েছে যে, আদমের মৃত্যুর অনেক বছর পর পৃথিবীর মানুষ সৃষ্টিকর্তাকে ভুলে গিয়ে হানাহানি ও অন্যান্য খারাপ কাজে লিপ্ত ছিল।

তাদেরকে সঠিক পথে ফেরানোর জন্য সৃষ্টিকর্তা নূহ নবীকে পাঠিয়েছিলেন। কিন্তু তখনকার অধিকাংশ মানুষই নূহের দেখানো পথে হাঁটেনি।

এমন পরিস্থিতিতে আল্লাহ সিদ্ধান্ত নিলেন যে, এক মহাপ্লাবন সৃষ্টি করে তিনি ‘বিপথগামী’দের ধ্বংস করে দিবেন।

নৌকাটির দৈর্ঘ্য ছিল প্রায় পাঁচশ ফুট। গফার বা সাইপ্রাস গাছের কাঠ দিয়ে তৈরি নৌকাটির তিনটি আলাদা তলা এবং একটি দরজা ছিল। বানানোর পর নৌকাটির ভেতরে ও বাইরে পিচ লাগানো হয় যেন পানিতে কাঠ নষ্ট হয়ে না যায়।

এরপর পশু ও পাখির মধ্য থেকে নারী-পুরুষ মিলিয়ে প্রতিটির সাতটি করে জোড়া নৌকাটিতে তোলা হয়। এছাড়া শূকর, ইঁদুর, বাদুড়ের মতো নোংরা প্রাণিগুলোর একটি করে জোড়া তোলা হয়।

জোড়ায় জোড়ায় পশু-পাখি তোলার পর নূহ তার পরিবারের সদস্যদেরকে নিয়ে নৌকায় ওঠেন। এরপর আল্লাহ নৌকার দরজা বন্ধ করে দেন।

এরপর শুরু হয় মহাপ্লাবন। প্রায় ৪০ দিন এবং ৪০ রাত ধরে মুষলধারে বৃষ্টিপাত হয়। তখন পৃথিবীর সবচেয়ে উঁচু পাহাড়ের চূড়া না ডোবা পর্যন্ত পানি বাড়তে থাকে।

এই মহাপ্লাবন ১৫০ দিন স্থায়ী হয়েছিল। ফলে নূহের নৌকার বাইরে পৃথিবীর আর কোথাও কোন প্রাণের অস্তিত্ব ছিল না।

পাঁচ মাস পর পানি কমতে শুরু করে। এরপর নূহের নৌকা আরারাত পাহাড়ে অবস্থান নেয়। পানি সরে গিয়ে পৃথিবীর কোথাও কোনো ভূমি জেগে উঠেছে কি না, সেটি দেখতে প্রথমে একটি কাক, তারপর একটি কবুতর পাঠান নূহ। কিন্তু কোথাও কোনো শুষ্কভূমি না পেয়ে সেগুলো পুনরায় নৌকায় ফিরে আসে।

সাতদিন পর আবারও একটি কবুতর ছেড়ে দেওয়া হয়, যেটি পরবর্তীতে ঠোঁটে একটি সতেজ জলপাই পাতা নিয়ে ফিরে আসে। এটি দেখে নূহ বুঝতে পারেন যে, ভূমি জাগতে শুরু করেছে।

আল্লাহর নির্দেশে এরপর নূহ তার পরিবার-পরিজন নিয়ে নৌকা থেকে বের হয়ে আসেন। এছাড়া পশু-পাখিদেরকেও ছেড়ে দেওয়া হয়।

এছাড়া দেড়শ দিন ভেসে বেড়ানোর পর নূহের নৌকাটি জুদি নামের একটি পর্বতে নোঙর ফেলে। জুদি পর্বতটি তুরস্কের আরারাত পর্বতমালারই একটি অংশ।

ঘটনার সত্যতা যাচাইয়ের মাধ্যমে অনুসন্ধিৎসু মনের কৌতুহল মেটানোর উদ্দেশ্যে এখনও অনেকে নূহের নৌকার খোঁজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

খ্রিস্টীয় তৃতীয় শতকের দিকে যে মানুষ নূহের নৌকার অনুসন্ধান করছিলেন, সেটি জানা যায় তৎকালীন ইতিহাসবিদ ইউসেবিয়াসের গ্রন্থ থেকে।

এরপর খ্রিস্টীয় পঞ্চম শতকে বাইজেন্টাইন সম্রাজ্যের ইতিহাসবিদ ফস্টাস তার ‘হিস্ট্রি অব দ্য আর্মেনিয়ানস’ গ্রন্থে সেন্ট জ্যাকব নামের একজন খ্রিস্টান ধর্মযাজককে ঘিরে তৈরি হওয়া একটি লোককাহিনীর উল্লেখ করেছেন।

১৮২৯ সালে একটি দল প্রথম এই পর্বতের চূড়ায় আরোহন করে। ১৮৫৯ সালে প্রকাশিত ‘জার্নি টু আরারাত’ গ্রন্থে মি. প্যারোট লিখেছেন, আর্মেনিয়ার মানুষরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করে যে, নূহের নৌকাটি এখনও আরারাত পর্বতের চূড়ায় রয়েছে।

বাইবেল ও কোরআনে মহাপ্লাবনের যে বর্ণনা দেওয়া হয়েছে, সেটির সাথে বেশ কিছু সভ্যতার কিংবদন্তির মিল পাওয়া গেছে।

মহাপ্লাবনের এই পৌরাণিক কাহিনী কি বাস্তব ঘটনাকে ভিত্তি করে গড়ে উঠতে পারে?

অবশ্য বিজ্ঞানীরা এ বিষয়ে একমত নন। তাছাড়া সেই যুগের ইতিহাসবিদেরা বাস্তব জীবনের অভিজ্ঞতা থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে প্রলয় সম্পর্কে লিখেছে কি না, সেটি নিয়েও বিতর্ক রয়েছে।

যদিও বিভিন্ন সময়ে যারা আরারাত পর্বতে উঠেছেন, তাদের অনেকেই সেখানে নূহের নৌকার ধ্বংসাবশেষ পেয়েছেন বলে দাবি করেছেন।

কিন্তু বিজ্ঞানভিত্তিক তথ্য-প্রমাণ না থাকায় সেসব দাবি বিশ্বাসযোগ্য নয় বলে মনে করেন প্রত্নতত্ত্ববিদরা।

"স্বীকৃত কোনো প্রত্নতত্ত্ববিদ এমন দাবি করেনি যে, তারা নৌকাটির ধ্বংসাবশেষ খুঁজে পেয়েছে," ন্যাশনাল জিওগ্রাফিককে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে বলেছেন যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব নর্থ ক্যারোলিনার প্রত্নতত্ত্ববিদ জোডি ম্যাগনেস।

তিনি আরও বলেন, "প্রত্নতত্ত্ব গুপ্তধন খোঁজ করার মতো কোনো বিষয় নয়। এটি কোনো নির্দিষ্ট বস্তুকে খুঁজে বের করার মতোও কোনো বিষয় নয়।"

প্রত্নতত্ত্ববিদরা এসব কথা বললেও যারা সেমেটিক ধর্ম মানেন, তাদের অনেকে এখনও বিশ্বাস করেন যে, নূহের সময় মহাপ্লাবনের ঘটনাটি সত্যি সত্যিই ঘটেছিল এবং নৌকা তৈরি করা হয়েছিল।

এক্ষেত্রে বাইবেল ও কোরানে উল্লেখিত মহাপ্লাবনের বিবরণকে তারা প্রমাণ হিসেবে উপস্থাপন করে থাকেন।

সূত্র: বিবিসি বাংলা

যাযাদি/ এম

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
X
Nagad

উপরে