বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

কালাইয়ে দাদা ও নাতির বাড়ি ফেরা হলো না

চার জেলায় সড়কে আরও ৫ জনের মৃতু্য
ম স্বদেশ ডেস্ক
  ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০০:০০
জয়পুরহাটের কালাইয়ে দাদা ও নাতি অটোভ্যানে চড়ে বাড়ির দিকে যাচ্ছিলেন। পথে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ট্রাক ভ্যানটিকে ধাক্কা দিলে তারা ঘটনাস্থলেই মারা যান। অন্যদিকে দিনাজপুরে ট্রাকচাপায় দুই পথচারী নিহত হয়েছেন। এ ছাড়া টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহের গৌরীপুর, পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় একজন করে নিহত হন। শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে শনিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত এসব ঘটনা ঘটে। আমাদের দিনাজপুর প্রতিনিধি জানান, দিনাজপুর মেডিকেল কলেজের সামনে ট্রাকের ধাক্কায় দুইজন পথচারী নিহত হয়েছেন। এ সময় ট্রাকটি পথচারীদের ধাক্কা দিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তা পাশে দাঁড়িয়ে থাকা তিন অ্যাম্বুলেন্স ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। শনিবার ভোর ৫টার দিকে দিনাজপুর এম. আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে এ দুর্ঘটন ঘটে। নিহতরা হলেন- গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার খানপুর খানপাড়া গ্রামের মকবুল হোসেনের ছেলে মোহাম্মদ আলী (৬৫) ও রাজিবপুর গ্রামের আজিজুল হকের ছেলে আজগার আলী (৩৫)। এ সময় আহত হয়েছেন মকবুল আলী (৪০)। দিনাজপুর কোতোয়ালি থানার ও?সি তানভীরুল ইসলাম তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, ট্রাকচালক ও হেলপার পলাতক রয়েছেন। ট্রাক পু?লি?শের হেফাজ?তে থানায় নি?য়ে আসা হয়েছে। এদিকে কালাই (জয়পুরহাট) প্রতিনিধি জানান, জয়পুরহাটের কালাইয়ে ট্রাকের সঙ্গে ব্যাটারিচালিত অটোভ্যানের সংঘর্ষে দাদা-নাতি নিহত হয়েছেন। শুক্রবার সন্ধ্যায় কালাই উপজেলার পাঁচশিরা টু মোলামগাড়ি সড়কের বাজাত-মহিরম এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন- কালাই উপজলার পুনট ইউনিয়নের শিকটা উত্তরপাড়া গ্রামের মৃত তছলিম উদ্দিনের ছেলে নজরুল ইসলাম (৬৫) এবং নাতি একই গ্রামের মাহমুদুল হাসানের ছেলে সাকিব (৫)। স্থানীয় ইউপি সদস্য মোর্শেদুল ইসলাম জানান, নিহত নজরুল ইসলাম তার মেয়ের বাড়ি ধাপেরহাট গ্রাম থেকে পাঁচ বছরের নাতিকে নিয়ে ভ্যানযোগে বাড়িতে ফিরছিলেন। পথে সড়ক দুর্ঘটনায় ঘটনাস্থলেই তারা নিহত হয়েছেন। কালাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মঈনুদ্দীন বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, দুর্ঘটনায় নিহতদের পরিবারের পক্ষ থেকে কোনো অভিযোগ না থাকায়, তাদের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে। স্টাফ রিপোর্টার, টাঙ্গাইল জানান, টাঙ্গাইলে দ্রম্নতগামী মোটর সাইকেলচাপায় ইদ্রিস আলী নামে এক পথচারী নিহত ও মোটর সাইকেলচালকর্ যাব সদস্য রোকনুজ্জামান গুরুতর আহত হয়েছেন। শুক্রবার রাতে টাঙ্গাইল-ময়মনসিংহ আঞ্চলিক মহাসড়কে কালিহাতী থানার পাশে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত ইদ্রিস আলী (৬৫) কালিহাতী পৌরসভার মৃত হাফেজ আলীর ছেলে এবং কালিহাতী পৌরসভার এক নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর সিদ্দিক হোসেনের বড় ভাই। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, টাঙ্গাইল-ময়মনসিংহ আঞ্চলিক মহাসড়কে কালিহাতী থানার পাশ দিয়ে পথচারী ইদ্রিস আলী রাস্তা পাড় হচ্ছিলেন। এ সময়র্ যাবের এএসআই রোকনুজ্জামান ওই সড়ক দিয়ে দ্রম্নতগতিতে মোটর সাইকেল চালিয়ে যাচ্ছিলেন। একপর্যায়ে মোটর সাইকেলটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ওই পথচারীকে ধাক্কা দেয়। এতে মোটর সাইকেলচালক ও পথচারী গুরুতর আহত হন। স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেস্নক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ইদ্রিস আলীকে মৃত ঘোষণা করেন। আহতর্ যাব সদস্য এএসআই রোকনুজ্জামানকে উন্নত চিকিৎসার জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। কালিহাতী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোলস্না আজিজুর রহমান জানান, মোটর সাইকেল চালককের ব্যাগ থেকে সৈনিকের ওর্ যাবের কার্ড পাওয়া গেছে। মোটর সাইকেলটি থানা হেফাজতে রয়েছে। গৌরীপুর (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি জানান, ময়মনসিংহের গৌরীপুরে অটোরিকশা ও মোটর সাইকেলের সংঘর্ষে মোটর সাইকেলচালক উজ্জ্বল মিয়া (৪০) ঘটনাস্থলে নিহত হয়েছেন। শুক্রবার গৌরীপুর-বেখৈরহাটি সড়কের গাগলা মোড়ে এ ঘটনা ঘটে। নিহত উজ্জ্বল মিয়া বোকাইনগর ইউনিয়নের মিরিকপুর গ্রামের মৃত জয়নাল আবেদিনের ছেলে। এ দুর্ঘটনায় আরও ছয়জন আহত হন। তারা হলেন- নেত্রকোনা জেলার বাসহাটি গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে চান মিয়া (৫৫), পূর্বধলার জালশুকা গ্রামের শফিকুল ইসলামের স্ত্রী মজির্না আক্তার (৩৪), সামিয়া আক্তার (৪০), দিনাজপুরের পাবর্তীপুরের পলাশবাড়ির নূর ইসলামের স্ত্রী সখিনা খাতুন (৪৫), গৌরীপুরের লাল মিয়া (৩০) ও রুকন মিয়া (৩৭)। মৃতু্যর বিষয়টি নিশ্চিত করেন অচিন্তপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. জায়েদুর রহমান। কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি জানান, পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় মালবাহী ট্রলি এবং যাত্রীবাহী অটোরিক্‌শার সংঘর্ষে জিহাদ (১২) নামে এক শিশু নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আরও সাতজন আহত হন। শনিবার দুপুরে উপজেলার বালিয়াতলী ইউনিয়নের ইউনিয়ন পরিষদ সংলগ্ন সড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত শিশুটির বাড়ি উপজেলার ধানখালী ইউনিয়নের মরিচবুনিয়া গ্রামের মিঠু খাঁ'র ছেলে। এ ঘটনায় আহতরা হলেন- জুনায়েদ (৪), মিম (১৪) এবং মুক্তা বেগম (৪০)। কলাপাড়া থানার ওসি মো. জসিম জানান, ঘাতক ট্রলি ড্রাইভারকে আটকের চেষ্টা চলছে।
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে