logo
রবিবার, ০৫ জুলাই ২০২০, ২১ আষাঢ় ১৪২৬

  যাযাদি রিপোর্ট   ০১ জুন ২০২০, ০০:০০  

৬৬ দিন বন্ধ থাকার পর শেয়ারবাজারে বড় উত্থান

৬৬ দিন বন্ধ থাকার পর শেয়ারবাজারে বড় উত্থান
দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) এবং অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) রোববার সূচকের বড় উত্থান হয়েছে। তবে বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম অপরিবর্তিত থাকায় লেনদেন তুলনামূলক কম হয়েছে।

মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে টানা ৬৬ দিন বন্ধ থাকার পর রোববার থেকে শেয়ারবাজারে আবার লেনদেন চালু হয়েছে। এদিন লেনদেনের শুরুতে শেয়ারবাজারে উত্থানের আভাস পাওয়া যায়।

লেনদেনের প্রথম পাঁচ মিনিটেই ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্স আট পয়েন্ট বেড়ে যায়। সূচকের ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতায় লেনদেন শেষ পর্যন্ত অব্যাহত থাকায় বড় উত্থানের দেখা মিলেছে।

ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্স আগের কার্যদিবসের তুলনায় ৫২ পয়েন্ট বেড়ে চার হাজার ৬০ পয়েন্টে উঠে এসেছে। অপর দুই সূচকের মধ্যে ডিএসই-৩০ সূচক ৩৪ পয়েন্ট বেড়ে এক হাজার ৩৬৫ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। আর ডিএসই শরিয়াহ্‌ ৩০ পয়েন্ট বেড়ে ৯৫১ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। বাজারটিতে লেনদেনে অংশ নেয়া ৬০টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দাম বাড়ার তালিকায় নাম লিখিয়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ৬৮টির। আর ১৯৫টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

দিনভর ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ১৪৩ কোটি ২৯ লাখ টাকা। শেয়ারবাজারে লেনদেন বন্ধ হওয়ার আগে শেষ কার্যদিবসে বাজারটিতে লেনদেন হয় ৩৪৮ কোটি ১৩ লাখ টাকা। সেই হিসাবে আগের কার্যদিবসের তুলনায় লেনদেন কমেছে ২০৪ কোটি ৮৪ লাখ টাকা।

টাকার অংকে বাজেটে সবথেকে বেশি লেনদেন হয়েছে স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালসের শেয়ার। কোম্পানিটির ১৯ কোটি ৬৫ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। দ্বিতীয় স্থানে থাকা বেক্সিমকো ফার্মার আট কোটি ৩৪ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ছয় কোটি ৫০ লাখ টাকার লেনদেনের মাধ্যমে এর পরের স্থানে রয়েছে গ্রামীণফোন।

এ ছাড়া লেনদেনের শীর্ষ ১০ প্রতিষ্ঠানের তালিকায় রয়েছে ওরিয়ন ফার্মা, বেক্সিমকো, সিলভা ফার্মা, সেন্ট্রাল ফার্মাসিউটিক্যালস, ইন্দো-বাংলা ফার্মাসিউটিক্যালস, রেকিট বেনকিজার এবং মুন্নু সিরামিক।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ১৪১ পয়েন্ট বেড়েছে। লেনদেন হয়েছে তিন কোটি ৩৫ লাখ টাকা। লেনদেনে অংশ নেয়া ১০৯ প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দাম বেড়েছে ৩১টির, কমেছে ২৪টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৫৪টির।

বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসের প্রকোপ বাংলাদেশে শুরু হয় গত ৮ মার্চ। ওইদিন বাংলাদেশে প্রথম তিনজন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার তথ্য প্রকাশ পায়।

এর প্রভাবে ৯ মার্চ শেয়ারবাজারে ভয়াবহ ধস নামে। ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্স একদিনে রেকর্ড ২৭৯ পয়েন্ট পড়ে যায়। এরপর দফায় দফায় দরপতন হতে থাকে। পরিস্থিতি সামাল দিতে ১৯ মার্চ থেকে শেয়ারবাজারে লেনদেনের সময় এক ঘণ্টা কমিয়ে আনা হয়।

এরপরও পতন ঠেকানো না গেলে প্রতিটি কোম্পানির শেয়ারের ফ্লোর প্রাইস (দামের সর্বনিম্ন সীমা) নির্ধারণ করে দেয় নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। এর মাধ্যমে শেয়ারবাজারের পতন কিছুটা হলেও থামানো যায়। তবে ২৬ মার্চ থেকে সরকার সাধারণ ছুটি ঘোষণা করলে শেয়ারবাজারে লেনদেন বন্ধ করে দেয়া হয়।

এদিকে যোগ্য বিনিয়োগকারীরা বিডিংয়ে (নিলাম) অংশ নিয়ে ডেল্টা হসপিটালের কাট-অফ প্রাইস মাত্র ১১ টাকা নির্ধারণ করেছেন। ফলে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে ১০ টাকা বা অভিহিত মূল্যে শেয়ার বিক্রি করতে হবে কোম্পানিটিকে। বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে শেয়ারবাজারে আসা এর আগে কোনো কোম্পানির কাট-অফ প্রাইস এত কম নির্ধারিত হয়নি।

নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) অনুমোদন নিয়ে গত ২২ মার্চ বিকাল ৫টা থেকে ২৫ মার্চ বিকাল ৫টা পর্যন্ত টানা ৭২ ঘণ্টার বিডিংয়ে অংশগ্রহণ করেন যোগ্য বিনিয়োগকারীরা। ২৬ মার্চ থেকে শেয়ারবাজার বন্ধ থাকায় রোববার কোম্পানিটির কাট-অফ প্রাইস প্রকাশ করা হয়েছে।

বিডিংয়ে ৮৮ জন বিডার দর প্রস্তাব করেন। এর মধ্যে ১৫ টাকা দরে সবচেয়ে বেশি ১৪ জন বিডার দর প্রস্তাব করেছেন। এরপর ১৪ টাকায় দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দর প্রস্তাব করেছেন ১১ জন বিডার।

বিডিংয়ে ৮৮ জন বিডার সর্বোচ্চ ৪৬ টাকা থেকে সর্বনিম্ন ১১ টাকার মধ্যে দর প্রস্তাব করেছেন। তারা মোট ৩২ কোটি ৩৯ লাখ ৮৭ হাজার ৯০০ টাকার দর প্রস্তাব করেছেন।

বিডিংয়ে অংশগ্রহণ করা বিনিয়োগকারীরা, তাদের প্রস্তাবিত দরে ৩১ কোটি ৫৪ লাখ ২৯ হাজার টাকার শেয়ার কিনবেন। আর কাট-অফ প্রাইস থেকে ১০ শতাংশ কম দরে বা প্রতিটি ১০ টাকা করে ১৮ কোটি ৪৫ লাখ ৭১ হাজার টাকার শেয়ার প্রাথমিক গণপ্রস্তাবে (আইপিও) ইসু্য করা হবে।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে