শিক্ষক হত্যা-লাঞ্ছনায় বিক্ষোভ অব্যাহত

শিক্ষক হত্যা-লাঞ্ছনায় বিক্ষোভ অব্যাহত

সাভারের আশুলিয়ায় শিক্ষক উৎপল কুমার সরকারকে পিটিয়ে হত্যা এবং নড়াইলের কলেজ শিক্ষক স্বপন কুমার বিশ্বাসকে হেনস্থায় জড়িতদের বিচার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে বৃহস্পতিবারও বিক্ষোভ, মিছিল, মানববন্ধনসহ নানা কর্মসূচিতে উত্তপ্ত ছিল দেশের বিভিন্ন শিক্ষাঙ্গন।

শিক্ষক উৎপল কুমার সরকারকে হত্যায় অভিযুক্ত আশরাফুল আহসান জিতুর সর্বোচ্চ শাস্তিসহ ৫ দফা দাবিতে বৃহস্পতিবারও মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করেছেন হাজী ইউনুস আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। মানববন্ধন করেছেন সাভারের ২১টি বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা। দেশব্যাপী শিক্ষক নির্যাতন বন্ধ না হলে আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি (বাশিস)। দোষীদের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) শিক্ষক সমিতি। শিক্ষক হত্যা ও অবমাননা ছাড়াও ইমেরিটাস অধ্যাপকের বাড়ি দখল করে হয়রানির ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিচার দাবিতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা।

বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে সাভার উপজেলা চত্বরে শিক্ষক উৎপল কুমার সরকারকে হত্যায় অভিযুক্ত জিতুর সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে বিক্ষোভে অংশ নেন প্রায় ৬ শতাধিক শিক্ষক-শিক্ষার্থী।

এ সময় তারা ৫ দফা দাবি জানান। এর মধ্যে রয়েছে- শিক্ষকদের নিরাপত্তায় সুরক্ষা আইন প্রণয়ন করতে হবে, আশরাফুল আহসান জিতুর দৃষ্টান্তমূলক সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে, নিহতের পরিবারকে সর্বোচ্চ আর্থিক ক্ষতিপূরণ দিতে হবে, জিতুর সহযোগীদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনতে হবে এবং স্থানীয় ও ভাড়াটিয়া শিক্ষার্থীদের ভেদাভেদ নির্মূল করতে সর্বোচ্চ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

হাজী ইউনুস আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ সাইফুল ইসলাম বলেন, আমরা চাই কিশোর গ্যাং নির্মূল হোক। জিতু পরিকল্পনা করে শিক্ষক উৎপলকে হত্যা করেছে। সে তার নেটওয়ার্ক গড়ে তুলেছে। যেখান থেকে জিতুকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, সেখানে আমাদের প্রতিষ্ঠানের সাবেক শিক্ষার্থী ছিল। তার কাছেই সে আশ্রয় নেয়। সুতরাং জিতু যে নেটওয়ার্ক গড়ে তুলেছে তা স্পষ্ট। আমরা চাই পুরো ঘটনা স্পষ্ট করা হোক।

একই দাবিতে মানববন্ধন করেছেন সাভারের বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরাও। বৃহস্পতিবার সকালে সাভার উপজেলা পরিষদ গেটের সামনে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে এই কর্মসূচি পালন করা হয়। এতে ফেডারেশন অব কিন্ডারগার্টেন অ্যাসোসিয়েশন নামে সংগঠনের প্রায় ২১টি প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা অংশ নেন।

মানববন্ধনে সংগঠনটির সাভার শাখার চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম বলেন, 'শিক্ষার্থীর হাতে শিক্ষক হত্যার মতো এমন ন্যক্কারজনক ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীও আমাদের হতে হচ্ছে। আমাদের শিক্ষকরা আজ নিরাপদ বোধ করছেন না। আমরা সরকারকে ধন্যবাদ জানাই দেরিতে হলেও ঘটনার মূল আসামি জিতুকে গ্রেপ্তার করার জন্য। একই সঙ্গে দাবি জানাই, দ্রম্নত এই মামলার বিচার কাজ শেষ করে অপরাধীর সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিতের। পাশাপাশি নিহত শিক্ষকের পরিবারকে আর্থিক ক্ষতিপূরণ দেওয়াসহ অতি দ্রম্নত ঘটনার মূল রহস্য উদ্ঘাটনেরও দাবি জানাই আমরা।'

এ সময় তারা শিক্ষকদের নিরাপত্তা নিশ্চিতের দাবিও জানান তিনি।

পরে ফেডারেশন অব কিন্ডারগার্টেন অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসক বরাবর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে একটি স্মারকলিপি জমা দেওয়া হয়।

শিক্ষক নির্যাতন বন্ধের দাবি

বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির

দেশব্যাপী শিক্ষক নির্যাতন বন্ধ না হলে আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি (বাশিস)।

বৃহস্পতিবার গণমাধ্যমে পাঠানো বিবৃতিতে সমিতির সভাপতি মো. নজরুল ইসলাম রনি এবং মহাসচিব মোহাম্মদ আতিকুর রহমান তালুকদারসহ অন্যান্য শিক্ষক নেতারা সই করেন।

বিবৃতিতে বলা হয়, 'হঠাৎ সংখ্যালঘু শিক্ষকদের ওপর জুলুম-নির্যাতন কিসের আলামত তা ভেবে দেখতে হবে। দেশব্যাপী শিক্ষক নির্যাতন বন্ধ না হলে কঠোর কর্মসূচির দেওয়া হবে।'

বিবৃতিতে শিক্ষক নেতারা বলেন, 'বর্তমান সময়ে শিক্ষক হত্যাসহ দেশব্যাপী শিক্ষক নির্যাতন ও বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চাকরিচু্যতির ঘটনা মারাত্মকভাবে বেড়েছে। এসব ঘটনায় বর্তমান সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হচ্ছে। শিক্ষা ও জাতিকে ধ্বংস করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে একটি অশুভ চক্র। মেধাবী শিক্ষক উৎপল কুমার সরকারকে নির্মমভাবে হত্যার ঘটনায় দেশব্যাপী তীব্র ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

বিবৃতিতে আরও স্বাক্ষর করেন- বাশিসের উপদেষ্টা অধ্যক্ষ মোহাম্মদ ফজর আলী, বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির কেন্দ্রীয় অতিরিক্ত মহাসচিব ওমর ফারুক, সিনিয়র সহ-সভাপতি মোহসিন আলী, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব মো. শামসুল হক তরফদার, সহকারী মহাসচিব দিলরুবা, সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুজ্জামান, ঝর্ণা বিশ্বাস, সোমা ভৌমিক, আব্দুর রহিম, মিজানুর রহমান, কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক আব্দুল আলীম, সহকারী প্রচার সম্পাদক এম এ সাঈদসহ প্রমুখ।

চবি শিক্ষক সমিতির মানববন্ধন

চবি প্রতিনিধি জানান, সাভারের আশুলিয়ার হাজী ইউনুস আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রভাষক উৎপল কুমার সরকারকে হত্যা এবং অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাসের মানহানির ঘটনায় দোষীদের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) শিক্ষক সমিতি।

বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের বুদ্ধিজীবী চত্বর প্রাঙ্গণে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ডক্টর সজীব কুমার ঘোষের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগের প্রফেসর নিয়াজউদ্দীন, সিন্ডিকেট সদস্য প্রফেসর ডক্টর মাঈনুল হক মিয়াজী, অর্থনীতি বিভাগের প্রফেসর ডক্টর আবুল হোসাইন, আধুনিক ভাষা ইনস্টিটিউটের প্রফেসর মঞ্জুরুল আলমসহ প্রমুখ।

সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক সিরাজুদ্দৌলা বলেন, শিক্ষকদের সঙ্গে ঘটে যাওয়া এমন হিংস্র ঘটনার প্রেক্ষাপট এক দিনে তৈরি হয়নি। ছাত্র রাজনীতির নামে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড ছাত্রদেরকে হিংস্র করে তুলছে। আজকে ছাত্রনেতাদের ভাবা উচিত তারা তাদের কর্মীদের কী শিক্ষা দিচ্ছে। প্রশাসনেরও উচিত এসব সমস্যার মূলে হাত দেওয়া।

উপ-উপাচার্য প্রফেসর বেণু কুমার দে বলেন, আমার বিশ্বাস শিক্ষকরা মানুষ গড়ার কারিগর। সুতরাং যখন একজন শিক্ষক হেনস্থার শিকার হন বা খুন হন তাহলে একটি জাতিই লজ্জার মুখে পড়ে। আজকে শিক্ষার্থীদের নিয়ে নতুন করে ভাবার সময় এসেছে। আমরা কি আসলেই তাদের প্রয়োজনীয় আদর্শ এবং মূল্যবোধের শিক্ষা দিতে পারছি কি না সেটিও নিশ্চিত করতে হবে।

শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ডক্টর সেলিনা আখতার বলেন, আমি স্পষ্টভাবে প্রশাসনের কাছে বলতে চাই অতিদ্রম্নত এসব নির্মমতার কঠোর বিচার করুন। অন্যথায় সারা বাংলাদেশের শিক্ষক সমাজ প্রতিবাদে ফেটে পড়বে।

শাবি শিক্ষকদের প্রতিবাদ সমাবেশ

শাবি প্রতিনিধি জানান, সাভারে শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা, নড়াইলে শিক্ষককে লাঞ্ছনা ও ইমেরিটাস অধ্যাপকের বাড়ি দখল করে হয়রানির ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিচার দাবিতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা।

বৃহস্পতিবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে শাবি শিক্ষক সমিতির ব্যানারে এ কর্মসূচি পালন করেন তারা। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শতাধিক শিক্ষক অংশগ্রহণ করেন।

সমাবেশে শিক্ষক সমিতির কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডক্টর মো. ফরহাদ হাওলাদারের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন সমিতির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অধ্যাপক ডক্টর জায়েদা শারমিন।

মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন জায়গায় শিক্ষকদের লাঞ্ছনা, হত্যা আর হয়রানিতে জড়িতদের এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি, শিক্ষকদের নিরাপত্তা ও সম্মান বজায় রাখা এবং বিভিন্ন সম্প্রদায়ের লোকেরা যাতে নিরাপত্তার সঙ্গে বসবাস করতে পারেন সে বিষয়ে রাষ্ট্রীয় কর্তৃপক্ষকে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান জানানো হয়।

জবি শিক্ষক সমিতির মানববন্ধন

জবি প্রতিনিধি জানান, নড়াইলে কথিত ধর্ম অবমাননাকারীকে আশ্রয় দেওয়ার অভিযোগে মির্জাপুর ইউনাইটেড ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাসকে হেনস্থা করা এবং সাভারের আশুলিয়ায় কলেজ শিক্ষক উৎপল কুমার সরকারকে হত্যা এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমেরিটাস অধ্যাপক ও পদার্থ বিজ্ঞানী ডক্টর অরুণ কুমারকে জমি সংক্রান্ত বিষয়ে হেনস্থা করায় তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি।

বৃহস্পতিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনার চত্বরে শিক্ষক সমিতির উদ্যোগে আয়োজিত মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে এই নিন্দা প্রস্তাব ও দোষীদের আইনের আওতায় এনে শাস্তির দাবি জানানো হয়।

সমাবেশে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডক্টর মো. ইমদাদুল হক বলেন, শিক্ষকদের হেনস্থা, লাঞ্ছিত এবং হত্যা এটা আমাদের জাতির জন্য কলঙ্ক। পিতা-মাতার পরেই যে শিক্ষদের অবস্থান সেখানে তাদের এ অপমান সহ্য করার মতো নয়। তাই আমি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে বলব অতি দ্রম্নত দোষীদের বিচারের মুখোমুখি করে একটা দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে যেন পরবর্তীতে আর কেউ শিক্ষকদের এভাবে অপমান হেনস্থা করতে সাহস না করে।

মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ডক্টর আবুল হোসেনের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ডক্টর আবুল কালাম মো. লুৎফর রহমানের সঞ্চালনায় ট্রেজারার অধ্যাপক ডক্টর কামাল উদ্দিন আহমেদসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদের ডিন, ইনস্টিটিউটের পরিচালক, বিভাগীয় চেয়ারম্যান, শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারী ও শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

উলেস্নখ্য, উত্ত্যক্তের ঘটনায় শাসন করায় গত ২৫ জুন সাভারের আশুলিয়ার চিত্রশাইল এলাকার হাজী ইউনুস আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক উৎপল কুমার সরকারকে স্ট্যাম্প দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করে তারই প্রতিষ্ঠানের দশম শ্রেণির ছাত্র আশরাফুল ইসলাম জিতু। আর বিতর্কিত মন্তব্যের জন্য সমালোচনায় থাকা ভারতের বিজেপি নেত্রী নূপুর শর্মার ছবি দিয়ে ফেসবুকে এক ছাত্রের পোস্টকে কেন্দ্র করে গত ১৮ জুন নড়াইলের মির্জাপুর ইউনাইটেড কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ স্বপন ?কুমার বিশ্বাসের গলায় জুতার মালা পরিয়ে হেনস্থা করা হয়। এছাড়া রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের 'অবহেলায়' রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞানী ইমেরিটাস অধ্যাপক অরুণ কুমার বসাকের জমি ১৮ বছর ধরে দখল করে রেখেছেন একটি ওয়াকফ এস্টেটের মোতাওয়ালিস্ন। একইসঙ্গে ৮২ বছর বয়সি এই শিক্ষাবিদকে মামলা দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2022

Design and developed by Orangebd


উপরে