শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃতু্যদন্ড আইনে পরিণত হচ্ছে

ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃতু্যদন্ড আইনে পরিণত হচ্ছে

ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃতু্যদন্ডের বিধান রেখে জারি করা অধ্যাদেশ আইনে পরিণত হচ্ছে। এজন্য 'নারী ও শিশু নির্যাতন দমন (সংশোধিত) আইন, ২০০০' এর খসড়া চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

রোববার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে ভার্চুয়াল মন্ত্রিসভা বৈঠকে এই অনুমোদন দেওয়া হয়। গণভবন প্রান্ত থেকে প্রধানমন্ত্রী এবং সচিবালয়ের মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে মন্ত্রীরা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বৈঠকে যোগ দেন।

বৈঠক শেষে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

গত ১২ অক্টোবর মন্ত্রিসভায় অনুমোদনের পরের দিন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ 'নারী ও শিশু নির্যাতন দমন (সংশোধন) অধ্যাদেশ, ২০০০' জারি করেন।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, 'অধ্যাদেশটিই আজ (রোববার) আইনের খসড়া হিসেবে উপস্থাপন করা হয়েছে। লেজিসলেটিভ বিভাগের চূড়ান্ত অনুমোদনসাপেক্ষে চূড়ান্ত ভেটিং করে দেওয়া হয়েছে। সংসদ অধিবেশন না থাকা

অবস্থায় যদি কোনো অর্ডিন্যান্স হয় তাহলে পরবর্তী সংসদ অধিবেশনের প্রথম দিনই সেটি উপস্থাপন করতে হয়।'

তিনি বলেন, 'অধ্যাদেশ হিসেবে যেটা আনা হয়েছিল সেটাই আজ (রোববার) আইনের খসড়া হিসেবে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।'

২০০০ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯(১) উপধারায় বলা হয়, 'যদি কোনো পুরুষ কোনো নারী বা শিশুকে ধর্ষণ করেন, তা হলে তিনি যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ডে দন্ডনীয় হবেন এবং এর অতিরিক্ত অর্থদন্ডেও দন্ডনীয় হবেন।'

সংশোধিত আইন অনুযায়ী ৯(১) উপধারায় 'যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ড' শব্দগুলোর পরিবর্তে 'মৃতু্যদন্ড বা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ড' শব্দগুলো প্রতিস্থাপন করা হয়েছে।

আগের আইনের ৩২(১) বলা হয়েছে, 'এই আইনের অধীন সংঘটিত অপরাধের শিকার ব্যক্তির মেডিকেল পরীক্ষা সরকারি হাসপাতালে কিংবা সরকার কর্তৃক এতদুদ্দেশ্যে স্বীকৃত কোনো বেসরকারি হাসপাতালে সম্পন্ন করা যাইবে।'

এতে আরও বলা হয়, 'কোনো হাসপাতালে এই আইনের অধীন সংঘটিত অপরাধের শিকার ব্যক্তির চিকিৎসার জন্য উপস্থিত করা হইলে, উক্ত হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাহার মেডিকেল পরীক্ষা অতিদ্রম্নত সম্পন্ন করিবে এবং উক্ত মেডিকেল পরীক্ষা সংক্রান্ত একটি সার্টিফিকেট সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে প্রদান করিবে এবং এইরূপ অপরাধ সংঘটনের বিষয়টি স্থানীয় থানাকে অবহিত করিবে।'

৩২ ধারায় সংশোধন এনে বলা হয়েছে, 'অপরাধের শিকার ব্যক্তির মেডিকেল পরীক্ষা'র পরিবর্তে 'অপরাধে অভিযুক্ত ব্যক্তি এবং অপরাধের শিকার ব্যক্তির মেডিকেল পরীক্ষা' করা হয়েছে। 'অপরাধের শিকার ব্যক্তির' পরিবর্তে করা হয়েছে 'অপরাধে অভিযুক্ত ব্যক্তি এবং অপরাধের শিকার ব্যক্তির সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করিয়া'।

'অভিযুক্ত ব্যক্তি এবং অপরাধের শিকার ব্যক্তির ডিঅক্সিরাইবোনিউক্লিক এসিড (ডিএনও) পরীক্ষা' শিরোনামে ৩২(ক) নামে নতুন একটি ধারা যুক্ত করা হয়েছে সংশোধিত আইনে। এই ধারায় বলা হয়েছে- এই আইনের অধীন সংঘটিত অপরাধে অভিযুক্ত ব্যক্তি অপরাধের শিকার ব্যক্তি মেডিকেল পরীক্ষা (ধারা-৩২ এর অধীন) ছাড়াও ওই ব্যক্তির সম্মতি থাকুক বা না থাকুক 'ডিঅক্সিরাইবোনিউক্লিক এসিড (ডিএনও) আইন, ২০১৪' এর বিধান অনুযায়ী ডিঅক্সিরাইবোনিউক্লিক এসিড (ডিএনও) পরীক্ষা করতে হবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
আইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

Copyright JaiJaiDin ©2020

Design and developed by Orangebd


উপরে