অবৈধ ইটভাটায় পুড়ছে শিশুর রঙিন ভবিষ্যৎ

অবৈধ ইটভাটায় পুড়ছে শিশুর রঙিন ভবিষ্যৎ

জীবনযুদ্ধ বড়ই বৈচিত্র্যময়! সন্তানকে শিক্ষিত ও সুখী করতে মা-বাবা হাড়ভাঙা পরিশ্রম করেন। কিন্তু নওগাঁর মহাদেবপুরে জীবন-জীবিকার তাগিদে অতিদরিদ্ররা ছোট্ট শিশুদের ইটভাটার ঝুঁকিপূর্ণ কাজে লাগাচ্ছেন। শ্রম আইন, কারখানা আইন ও শিশু আইনে শিশুদের শ্রমে নিয়োগ নিষিদ্ধ হলেও পেটের তাগিদে তাদের যেন কিছুই করার নেই; জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করেও মজুরি বৈষম্যের শিকার হচ্ছে শিশুরা।

জানা গেছে, আইনের তোয়াক্কা না করেই শিশুদের দিয়ে কাজ করাচ্ছেন তিন ফসলি কৃষি জমিতে গড়ে ওঠা অবৈধ ইটভাটা মালিকরা। এসব ভাটার পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ও জেলা প্রশাসনের অনুমোদন নেই বলে জানিয়েছেন নওগাঁ জেলা পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মকবুল হোসেন। সস্তা ও সহজে শিশুশ্রমিক মেলায় ভাটা মালিকরা তাদের কাজে লাগাচ্ছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। প্রকাশ্যে শিশুশ্রমের ঘটনা ঘটলেও প্রশাসনের তেমন কোনো দৃশ্যমান পদক্ষেপ নেই।

সরেজমিনে উপজেলার খাজুর এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, মেসার্স খান অ্যান্ড সন্স ইটভাটায় শিশুরা কাঁচা ইট শুকানোর জন্য ইট উল্টে দেওয়া, শুকানো এবং ভেঙে যাওয়া কাঁচা ইট কুড়িয়ে স্তূপ করছে। থরে থরে সাজানো কাঁচা ইট রোদে শুকানোর পর এগুলো নিয়ে যাওয়া হচ্ছে চুলিস্নতে। আগুনের তাপে পুড়ছে ইট। সেই সঙ্গে পুড়ছে শিশুর রঙিন ভবিষ্যৎ এবং স্বপ্নও।

শিশুশ্রমিক দিয়ে কাজ করানোর অভিযোগ অস্বীকার করেছেন মেসার্স খান অ্যান্ড সন্স ইটভাটার ম্যানেজার শ্রী সুবোধ। তিনি জানান, তাদের ভাটায় কোনো শিশুশ্রমিক নেই। আইন মেনেই তারা সরদারদের মাধ্যমে শ্রমিক নিয়োগ করেছেন। মহাদেবপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিজানুর রহমান মিলন জানান, আইনে শিশুশ্রম নিষিদ্ধ। শিশুশ্রমের বিষয়টি তার জানা নেই। তদন্ত করে দ্রম্নত আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলেও জানান তিনি।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
আইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে